আমি পপুলার, তাই আমাকে নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা : সালাউদ্দিন

স্পোর্টস ডেস্ক : নির্বাচনী উত্তাপ বইছে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ফুটবলে। ৩ অক্টোবর বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) নির্বাচন। তার আগে এখন সরগরম ফুটবল অঙ্গন।

এবারের নির্বাচনেও সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। টানা চতুর্থবারের মতো সভাপতি পদে নির্বাচন করতে যাওয়া সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে অবশ্য অনেকে নানাভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন। তবে নিজের বিরুদ্ধে চলা সেই সব সমালোচনা, প্রচারণাকে কোনো পাত্তাই দিচ্ছেন না ২০০৮ সাল থেকে ফুটবলের সভাপতি পদে থাকা সালাউদ্দিন।

তার দাবি, ‘আমি পপুলার। তাই আমাকে নিয়ে এত আলোচনা-সমালোচনা।’

সভাপতি পদে সালাউদ্দিনের প্রতিদ্বন্দ্বী এবার সাবেক ফুটবলার ও কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক। আরেক সাবেক ফুটবলার বাদল রায় সভাপতি পদে মনোনয়নপত্র কিনলেও নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন। তবে নির্ধারিত সময় পেরিয়ে যাওয়ার পর সরে দাঁড়ানোয় ব্যালটে নাম থাকছে বাদল রায়ের।

নির্বাচনের ফলাফল কি হবে সেটি সময়ই বলবে। তবে ‘বয়কট সালাউদ্দিন’, ‘সালাউদ্দিন আউট, ‘সেইভ বাংলাদেশ ফুটবল’ হ্যাশট্যাগে সয়লাব হয়ে গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক। সালাউদ্দিনের পদত্যাগ চেয়ে প্রেসক্লাবের সামনে কিছু ফুটবলপ্রেমী মানববন্ধনও করেছে। যা নিয়ে সালাউদ্দিন বলছেন, ‘এগুলোকে খুব একটা গুরুত্ব দিতে চাই না।’

বরং এগুলোকে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অংশ মনে করছেন তিনি, ‘আমার বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট একটি প্ল্যাটফর্ম থেকে এসব করা হচ্ছে। এটা আমি বুঝতে পারি কিছু জিনিস দেখে। ধরুন, এক হাজার মানুষ আমার নাম লিখছে কাজী সালাউদ্দিন আহমেদ। আমার নাম তো কাজী সালাউদ্দিন। এত মানুষ তো একই ভুল লিখতে পারে না। তার মানে একটা প্ল্যাটফর্ম থেকেই এগুলো করা হচ্ছে।’

যারা তার পদত্যাগ চাইছেন তাদের উদ্দেশে সালাউদ্দিনের বক্তব্য, ‘তারা আমাকে বলছে পদত্যাগ করতে। ১৫ দিন পর নির্বাচন, আমি কেন পদত্যাগ করব। তারা নির্বাচনে জিতে আসুক। আমি যদি সঠিক সময়ে নির্বাচন না দিতে পারতাম তাহলে পদত্যাগের প্রশ্ন আসত। আমি তো নির্বাচন দেওয়ার জন্য পাগল হয়ে গেছি।’


জুমবাংলানিউজ/এসএস