জাতীয়

ই-পাসপোর্ট সম্পর্কে জেনে নিন

জুমবাংলা ডেস্ক : বিশ্বের ১১৯তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশে ই-পাসপোর্ট চালু হয়েছে৷ সোয়া তিন হাজার কোটি টাকায় জার্মান কোম্পানি ভেরিডোস ই-পাসপোর্ট ও এ সংক্রান্ত অন্যান্য সরঞ্জাম সরবরাহ করছে৷ আসুন ই-পাসপোর্ট ও এর সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে জেনে নেই৷ খবর ডয়চে ভেলের।

এ বছরই দেশ জুড়ে
২০২০ সালের মধ্যেই সারাদেশে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালুর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার৷ এছাড়া প্রবাসীরাও পর্যায়ক্রমে ই-পাসপোর্ট পাবেন৷ পাশাপাশি মেশিন রিডেবল পাসপোর্টও কার্যকর থাকবে৷

মেয়াদ
ই-পাসপোর্ট হবে পাঁচ ও ১০ বছর মেয়াদি। পাসপোর্টের আকারও হবে দুই ধরনের; ৪৮ পৃষ্ঠা ও ৬৪ পৃষ্ঠা৷ উভয় মেয়াদে উভয় ধরনের ই-পাসপোর্ট গ্রহণ করা যাবে৷

৪৮ পৃষ্ঠার খরচ
৪৮ পৃষ্ঠার পাঁচ বছর মেয়াদি সাধারণ পাসপোর্টের (১৫ দিনের মধ্যে দেওয়া হবে) জন্য ফি লাগবে ৩৫০০ টাকা৷ সাতদিনের মধ্যে (জরুরি) পেতে ৫৫০০ এবং দুদিনে (অতি জরুরি) পাওয়ার জন্য খরচ ৭৫০০ টাকা৷ ১০ বছর মেয়াদি ই-পাসপোর্টের জন্য ৫ হাজার, জরুরি ৭ হাজার ও অতি জরুরির জন্য ৯ হাজার টাকা ফি ধরা হয়েছে৷

৬৪ পৃষ্ঠার খরচ
৬৪ পৃষ্ঠার পাঁচ বছর মেয়াদি ই-পাসপোর্ট করতে লাগবে যথাক্রমে ৫৫০০ টাকা, সাত হাজার ৫০০ ও ১০ হাজার ৫০০ টাকা৷ আর ১০ বছর মেয়াদের জন্য লাগবে যথাক্রমে ৭ হাজার, ৯ হাজার ও ১২ হাজার টাকা৷

প্রবাসীদের জন্য
বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে ই-পাসপোর্ট আবেদনে আলাদা ফি নির্ধারণ করা হয়েছে৷ ৪৮ পৃষ্ঠার পাঁচ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১০০ মার্কিন ডলার ও জরুরি ফি ১৫০৷ ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১২৫ ও জরুরি ফি ১৭৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে৷ ৬৪ পৃষ্ঠার ক্ষেত্রে পাঁচ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১৫০ মার্কিন ডলার ও জরুরি ফি ২০০ এবং ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১৭৫ ও জরুরি ফি ২২৫ মার্কিন ডলার৷

আবেদন প্রক্রিয়া
ই-পাসপোর্ট এর আবেদন অনলাইনে অথবা পিডিএফ ফরমেট ডাউনলোড করে পূরণ করা যাবে৷ এতে কোনো ছবির প্রয়োজন হবে না; কাগজপত্র সত্যায়নও করতে হবে না৷

কোন কোন দেশে ই-পাসপোর্ট
বাংলাদেশের আগে আরো ১১৮টি দেশ ই-পাসপোর্ট চালু করেছে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত সব দেশে ই-পাসপোর্ট ব্যবস্থা চালু আছে৷ আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত এবং মালদ্বীপেও ই-পাসপোর্ট আছে৷

সুবিধা
ই-পাসপোর্ট নামে পরিচিত বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট মেশিন রিডএবল পাসপোর্টের মতই, তবে এতে স্মার্ট কার্ড প্রযুক্তি ব্যবহার হয়৷মাইক্রোপ্রসেসর চিপ এবং অ্যান্টেনার মাধ্যমে এ পাসপোর্টের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাসপোর্টের ডেটা পেইজ এবং চিপে সংরক্ষিত থাকবে৷ এক ব্যক্তির একাধিক পাসপোর্ট করার সুযোগ বন্ধ হওয়াসহ এই পাসপোর্ট নাগরিক ভোগান্তি কমাবে বলে আশা করা হচ্ছে৷

অসুবিধা
ডেটা সুরক্ষা ব্যবস্থা থাকার পরও ই-পাসপোর্টে প্রাইভেসি নিয়ে কিছু বিতর্ক হয়ে গেছে৷ পাসপোর্টের ডেটা তারবিহীন আরএফআইডি প্রযুক্তি ব্যবহার করে ট্রান্সফার করার কারণে তা বেহাত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে৷ চিপে থাকা ব্যক্তিগত তথ্য আর পাসপোর্ট নাম্বার সঠিকভাবে এনক্রিপ্ট করে না রাখা হলে তা অপরাধীদের হাতেও চলে যেতে পারে৷ যুক্তরাজ্যসহ কয়েকটি দেশে এটা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে৷

যাদের বাচ্চা আছে, এই এক গেইমে আপনার বাচ্চার লেখাপড়া শুরু এবং শেষ হবে খারাপ গেইমের প্রতি আসক্তিও। ডাউনলোডকরুন : http://bit.ly/2FQWuTP




জুমবাংলানিউজ/এসআর


আপনি আরও যা পড়তে পারেন


rocket

সর্বশেষ সংবাদ