in

ঈদের পর গার্মেন্টস খোলার বিষয়ে যে চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার

পবিত্র ঈদুল আজহার পর ২৩ জুলাই থেকে ১৪ দিনের কঠোর লকডাউনে পোশাক কারখানা খোলার চিন্তা ভাবনা করছে সরকার।

শনিবার (১৭ জুলাই) মন্ত্রিপরিষদ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের সঙ্গে বিজিএমইএ, বিকেএমইএ, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিল অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ গার্মেন্টস এক্সেসারিজ অ্যান্ড প্যাকেজিং ম্যান্যুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ টেরিটাওলে অ্যান্ড লিনেন ম্যানুফাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা বৈঠকে করে ঈদের পর পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ার দাবি জানান।

এসময় কারখানা খোলার অনুরোধ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবর চিঠি দেয় পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন।

প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে পোশাকশিল্প মালিকরা বলেছেন, ‘ঈদের ছুটি সংক্ষিপ্ত করে দেশের রপ্তানিমুখী শিল্পকারখানাগুলো যত দ্রুত সম্ভব ঈদের পরে খুলে দিলে দেশের রপ্তানি খাত বহুমুখী বিপর্যয়ের আশঙ্কা থেকে রক্ষা পাবে।’
গার্মেন্টস
জানা গেছে, তাদের এই দাবির প্রেক্ষিতে ঈদের পর পোশাক কারখানা খুলে দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।ঈদের আগেই এবিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসতে পারে।

উল্লেখ্য, দেশে করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বগতি থামাতে গত ১ জুলাই থেকে দুই সপ্তাহের কঠোর লকডাউন আরোপ করে সরকার। কোরবানির ঈদ ও পশু ব্যবসার কথা চিন্তা করে ১৫ জুলাই থেকে এই লকডাউন আটদিনের জন্য শিথিল করা হয়েছে।

এ বিষয়ে গত মঙ্গলবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন, জনসাধারণের যাতায়াত, ঈদ পূর্ববর্তী ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা, দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থা এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে আগামী ১৪ জুলাই ২০২১ তারিখ মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ০৬টা পর্যন্ত আরোপিত সকল বিধি-নিষেধ শিথিল করা হলো।

প্রজ্ঞাপনে নতুন করে ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত লকডাউন আরোপের কথা উল্লেখ করা হয়।

অনলাইনে খুব সহজে টাকা ইনকাম করার উপায়