ঈদে ভোগান্তি লাঘবে ১১ পদক্ষেপ

আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-আযহা ২০২১ উপলক্ষে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নাগরিক ভোগান্তি নিরসনে ১১টি পদক্ষেপ নিয়েছে। ডিএনসিসি জানিয়েছে, নির্বিঘ্নে পবিত্র ঈদের আনন্দ উদযাপন করতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এ বছর সর্বাত্মক প্রস্ত্ততি গ্রহণ করেছে।

ডিএনসিসি জানিয়েছে এসব প্রস্তুতির মধ্যে রয়েছে (১) কোভিড-১৯ বিবেচনায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন আওতাধীন ৯টি পশুর হাট নির্ধারণ।

(২) ডিজিটাল পশুর হাটের মাধ্যমে জনগণ বাসায় বসেই কোরবানির পশু পছন্দ করতে পেরেছে। শুধু তাই নয় ডিজিটাল হাটের ব্যবস্থাপনায় ক্রেতার চাহিদা মোতাবেক পশু জবাই এবং বাড়ী বাড়ীতে মাংস পৌঁছানোর সেবা প্রদান করা হবে।

(৩) এ বছর ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে অন্তর্ভুক্ত নতুন এলাকাসহ ৫৪ ওয়ার্ডে আনুমানিক ২ লক্ষাধিক পশু কোরবানি দেয়া হবে, যা গত বছরের তুলনায় কিছুটা কম হবে। কোরবানির পশু জবাই করার জন্য ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক এ বছর ৩০৭ স্থানে নগরবাসিকে পশু কোরবানি দেয়ার সুবিধার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। প্রসঙ্গত রাস্তার ওপর কিংবা ড্রেনের পাশে কোরবানি না করার জন্য বিশেষ সচেতনতামূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। কোরবানির জন্য সর্বমোট ২৫০ জন ইমাম ও ২৫০ জন মাংস প্রস্ত্ততকারীকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পবিত্র ঈদ-উল-আযহায় পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম তদারকি ও ত্বরিত অপসারণ কাজের স্বার্থে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ওয়ার্ড ভিত্তিক দায়িত্ব প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

(৪) জনসচেতনতা বাড়ানোর জন্য ৪ লক্ষাধিক লিফলেট বিতরণ, প্রতিটি ওয়ার্ডে মাইকিং, প্রতিটি মসজিদের ইমাম সাহেবদের মাধ্যমে নামাজের পরে ও জুমা’র খুতবার সময় কোরবানি পশু জবাই ও বর্জ্য অপসারণ বিষয়ে মুসুল্লিদের উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে।

(৫) রেডিও, টেলিভিশন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হবে। ১০টি গাড়ির সাহায্যে ঢাকা উত্তর সিটিতে জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য লিফলেট বিতরণ ও ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মাইকিং করা হবে।

(৬) কোরবানি উপলক্ষে আগত পশু হতে উৎপন্ন বর্জ্য অপসারণ এবং কোরবানির পশুর হাট সার্বক্ষণিক পরিস্কার করার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কাজের সাথে সম্পৃক্ত অন্যন্য বিভাগ যেমন-প্রকৌশল বিভাগের যান্ত্রিক সার্কেল, ভান্ডার ও ক্রয় বিভাগ, পরিবহন বিভাগ, স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে সমন্বয় সাধনের জন্য মোট ২টি সমন্বয় সভা করা হয়েছে। কোরবানির বর্জ্য অপসারণের জন্য বিশেষ পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের আওতায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব ২৬৬৭ জন এবং অন্যান্য বেসরকারী ব্যবস্থাপনায়সহ সর্বমোট ১১৫০৮ জন কর্মী কোরবানির বর্জ্য অপসারণে নিয়োজিত করা হয়েছে।

(৭) জবাইকৃত কোরবানির পশুর বর্জ্য তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণ এবং কোরবানির পশুর হাটসমুহ দ্রুত পরিস্কারের লক্ষে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব বর্জ্যবাহী ট্রাক, ভারী যন্ত্রপাতি, ওয়াটার বাউজারের পাশাপাশি আউটসোর্সিং হতে অতিরিক্ত গাড়ি নিয়োজিত করা হবে। ঈদ উপলক্ষ্যে বর্জ্য পরিবহন সক্ষমতা কমপক্ষে ১০ হাজার টনে উন্নিতকরণে প্রয়োজনীয় যান-যন্ত্রপাতি নিয়োজিত করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে ঈদের পূর্বের দিন থেকে ঈদের পরবর্তী ২ দিন নিরবিচ্ছিন্নভাবে বর্জ্য অপসারণের জন্য বর্জ্যবাহী ড্রাম্প ট্রাক/খোলা ট্রাক,ভারী যান-যন্ত্রপাতি, পানির গাড়ি,বেসরকারী এবং ভাড়ায় পিকআপভ্যানসহ সর্বমোট ৪৯৩টি গাড়ী নিয়োজিত থাকবে।

(৮) কোরবানির পশুর বর্জ্য দ্বারা যাতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ সৃষ্টি না হয় সে লক্ষে জবাই এর স্থানে ১১টি ওয়াটার বাউজার দ্বারা তরল জীবাণুনাশক মিশ্রিত পানি স্প্রে করণের ব্যবস্থা এবং বর্জ্য ব্যাগ, ব্লিচিং পাউডারসহ অন্যান্য পরিচ্ছন্নতার জন্য ব্যবহৃত উপকরণ সম্মানিত ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের মাধ্যমে সংশিস্নষ্টদের মধ্যে বিতরণ করা হবে। এর মধ্যে রয়েছে বর্জ্য ব্যাগ ৬.৫ লক্ষ, ব্লিচিং পাউডার ৫০ টন, ১০০৫ ক্যান (প্রতিটি ৫ লিটার) স্যাভলন।

(৯) ল্যান্ডফিলে ঈদ-উল-আযহার অতিরিক্ত বর্জ্য পরিবেশসম্মত ডিসপোজাল নিশ্চিতকরণের লক্ষে ৬০ X ৫০ X ১২ আয়তনের ২টি পরিখা খনন করা হবে এবং দিবারাত্রি ২৪ ঘন্টা কাজ করার জন্য পর্যাপ্ত বৈদ্যুতিক ব্যবস্থাসহ অতিরিক্ত যান-যন্ত্রপাতির ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঈদ উপলক্ষে ল্যান্ডফিলে বর্জ্য ড্রেসিং কার্যক্রমে ৫টি এস্কেভেটর, ৬টি চেইন ডোজার, ১টি ট্যায়ার ডোজার ও ১টি পে-লোডার নিয়োজিত রাখা হবে। প্রতিটি বাড়ি হতে দ্রুত বর্জ্য সংগ্রহ করার জন্য পর্যাপ্ত সার্ভিসের ব্যবস্থা রাখা এবং প্রতিটি ওয়ার্ডে ভ্যানগাড়িতে করে ব্লিচিং পাউডার ছিটানোর ব্যবস্থা করা হবে।

(১০) কোরবানি পশুর বর্জ্য অপসারণে প্লট-২৩-২৬, সড়ক-৪৬, গুলশান-২, নগর ভবন নীচ তলায় অস্থায়ী কেন্দ্রী কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হয়েছে।

(১১) কন্ট্রোল রুমের পাশাপাশি বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম তদারকী করার জন্য ২২ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদারকী টিম গঠন করা হয়েছে। তাদেরকে তদারকী করার জন্য ওয়ার্ড ভিত্তিক দায়িত্ব দেয়া হবে এবং ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তা/কর্মচারীরা ঈদের ছুটিকালীন কর্মস্থলে অবস্থান করার নিশ্চয়তা বিধান করা হয়েছে।


জুমবাংলানিউজ/ জিজি