Views: 926

বিভাগীয় সংবাদ

একাই হত্যা করলেন স্ত্রী-কন্যাকে, লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন নরপশু স্বামী


জুমবাংলা ডেস্ক: দুর্গম চরে স্ত্রীর কাছ থেকে অসুস্থ মেয়েকে কেড়ে নিয়ে হত্যা করে আল আমিন। এরপর গলায় ওড়না পেচিয়ে স্ত্রীকেও হত্যা করে নরপশু স্বামী।

রিমান্ডে পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তি দিয়েছে বগুড়ার সারিয়াকান্দির আল আমিন (২৮)। তার ছয় বছরের শিশু রুমানা খাতুন ও স্ত্রী শেফালী বেগমকে (২৪) হত্যা করে।

এরই মধ্যে দুর্গম চরে জোড়া খুনের রহস্য উন্মোচিত হয়েছে।

পাঁচ দিনের রিমান্ডের চতুর্থ দিন বৃহস্পতিবার রাতে আল আমিন বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ওমর ফারুকের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

শুক্রবার (২৭ মার্চ) দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো পুলিশের এক বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়।

পুলিশ জানায়, বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার বোহাইল ইউনিয়নের শংকরপুর চরের আল আমিন প্রায় আট বছর আগে প্রেমের সম্পর্কে শেফালী বেগমকে বিয়ে করে। তাদের সংসারে ছয় বছর বয়সী শিশু রুমানা খাতুন ছিল। আল-আমিন চরে মোটরবাইকে যাত্রী পরিবহণ করে জীবিকা নির্বাহ করত।

তবে সে তার আয়ের কোন অংশ সংসারে দিত না। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ দেখা দেয়। শেফালী বেগম তার অসুস্থ শিশু রুমানাকে চিকিৎসা দিতে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি বিকালে পার্শ্ববর্তী ধারাবর্ষা চরে সাত্তার মেম্বরের গুচ্ছগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। রাতে সে বাড়ি ফেরেনি। পরদিন বিকালে পথিমধ্যে শংকরপুর চরে রাস্তার পাশে একটা ভুট্টাক্ষেতে মা ও মেয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়।


সারিয়াকান্দি থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, প্রাথমিক তদন্তে এ জোড়া খুনের সঙ্গে উগ্র মেজাজ ও মাদকসেবী আল আমিনের সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়। গত ২০ মার্চ বগুড়া শহরের সাবগ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। হত্যার দায় স্বীকার না করায় পরদিন তাকে আদালতে হাজির করে পাঁচদিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছিল।

জিজ্ঞাসাবাদের চতুর্থদিন বৃহস্পতিবার তিনি (আল আমিন) স্ত্রী ও মেয়েকে হত্যার কথা স্বীকার করে। বিকালে তাকে বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ওমর ফারুকের আদালতে হাজির করা হয়। রাতে তিনি হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

স্বীকারোক্তিতে আল আমিন আদালতকে জানায়, সংসারে অভাবসহ নানা কারণে স্ত্রী শেফালী বেগমের সঙ্গে তার দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। শেফালী অসুস্থ মেয়ে রুমানাকে চিকিৎসা দিতে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি বিকালে বাড়ি থেকে বের হয়। এ সময় তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

গ্রামের একটি ভুট্টাক্ষেতে পৌঁছালে আল আমিন তাদের পথরোধ করে। একপর্যায়ে মেয়ে রুমানাকে ছিনিয়ে নিয়ে গলা টিপে হত্যা করেন। তখন শেফালী চিৎকার করে পালানোর চেষ্টা করলে তাকে ধাওয়া করে ধরা হয়। এরপর ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে তাকেও হত্যা করা হয়। হত্যার পর আল আমিন লাশ ফেলে বাড়িতে চলে আসে।

তিনি আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে মেয়ে ও স্ত্রীকে খুঁজতে যায়। ওইদিন রাতে পুলিশ লাশ দুটি উদ্ধার করে। পরদিন শেফালীর বাবা ওসমান মন্ডল সারিয়াকান্দি থানায় অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।


যাদের বাচ্চা আছে, এই এক গেইমে আপনার বাচ্চার লেখাপড়া শুরু এবং শেষ হবে খারাপ গেইমের প্রতি আসক্তিও।ডাউনলোডকরুন : https://play.google.com/store/apps/details?id=com.zoombox.kidschool


আরও পড়ুন

কিস্তি নিয়ে স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া, স্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

Saiful Islam

বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ তিন রোহিঙ্গা আটক

Saiful Islam

সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে নিহত ১

Saiful Islam

যৌনপল্লিতে হিজড়াদের উপদ্রব, প্রতিবাদে সড়কে যৌনকর্মীরা

Saiful Islam

যুবকের লাশ রেখে পালালেন স্ত্রী

Saiful Islam

স্ত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে বাধা দেওয়ায় স্বামীকে নির্মমভাবে খুন!

Saiful Islam