in , , ,

এক কেজি আলুর দাম ৪০০ টাকা!

জুমবাংলা ডেস্ক : বগুড়ায় নবান্নের দিনে অবিশ্বাস্য দামে আলু বিক্রি হয়েছে।নবান্ন উপলক্ষ্যে  শহরের রাজা বাজার ও ফতেহ আলী বাজারে এক কেজি আলু ৪০০ টাকায় বিক্রি করা হয়েছে। নিয়ম রক্ষার প্রয়োজনের জন্য সনাতন ধর্মের অনেক অনুসারী আলু কিনেছেনও।

তবে এবারে আলুর এই দামে অবাক হয়েছেন বাজার করতে আসা ক্রেতারা। গ্রামীণ সংস্কৃতির বিশেষ এ দিনে শহরের সনাতন ধর্মাবলম্বীরা শস্যোৎসব পালন করে আসেন। পাশাপাশি বাড়িতে হাট-বাজার থেকে কেনা বড় মাছ ও কৃষেকর উঠানো নতুন সবজি দিয়ে উৎসবটি পালিত হয়। আর এই উৎসবের অন্যতম একটি জায়গা জুড়ে আছে নতুন আলু। বগুড়া শহরের বড় দুই সবজির বাজার ফতেহ আলী ও রাজাবাজার। নবান্ন উপলক্ষে শহরের অধিকাংশ ক্রেতারা এ বাজার দুটিতে ভিড় করেন। শহরের ফতেহ আলী বাজারের আলুর দোকানদার শামসুল হক জানান, বছরে নবান্নের প্রথম দিন শুধুমাত্র এই নতুন আলুর দাম বেড়ে যায়। মূলত আমাদের কৃষকেরা দিনটিকে উৎসব হিসবে নিয়ে বেশি দামে বিক্রয় করে। এ জন্য আমরাও বেশি দামে আলু বিক্রি করি।

বছরে এই দিন আলু বিক্রি কিছুটা উৎসবের মতো বলে জানালেন রাজাবাজারের আলু দোকানদার বিনয় রাজ। তিনি জানান, ‘নতুন আলুর বেশি পরিমাণ চাহিদা থাকে না। কিন্তু প্রয়োজনে অনেকে কিনেন। আমাদেরও ভালো লাভ হয়।’ ফতেহ আলী বাজারে নতুন আলু কিনতে আসা বিনীতা রায় বলেন, ‘আধা কেজি আলু নিয়েছি। সামর্থ্য অনুযায়ী উৎসবে যুক্ত থাকতে পারাটা আসল কথা। এখানে আলুর দাম বেশি এ জন্য কোন খারাপ লাগা কাজ করে না। মূলত এটিও উপভোগ করার মতো।’

একই বাজারে বৃহস্পতিবার দুই পিস আলু ৭০ টাকার কিনেছেন শহরের চেলোপাড়া এলাকার সুকুমার ও চন্দন। সুকুমার বলেন, নবান্নের এই দিন সনাতন ধর্মের মানুষের কাছে বিশেষ দিন। বিশেষ এই দিনে নতুন খাবারের সাথে আমরা উৎসব উদযাপন করি। এখানে অর্থ কোনো বিষয় নয়। নতুন আলুর দাম এতো বেশি হওয়ার কারণে অবাক হয়েছেন বগুড়ার মালতিনগরের বাসিন্দা কল্যাণ দাস। তিনি বলেন, নবান্নের দিনে নতুন সবজির দাম সাধারণত বেশি হয়। তাই বলে এতো বেশি! অবিশ্বাস্য দামে বগুড়ায় নতুন আলু বিক্রি হয়েছে।

আলু দাম শুনে বাজারে আসা অনেক ক্রেতা অবাক হয়েছে। সনাতন ধর্মের অনেকে নতুন আলু না কিনে ফিরেও গেছেন। তবে বাজারে পুরোনো আলু দামে কোনো প্রভাব পড়েনি। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে পুরাতন আলু বিক্রি হচ্ছে। সাধারণ মানুষ অবশ্য পুরোনো আলুই বেশি কিনছে। আর অন্যান্য তরিতরকারির দামও স্বাভাবিক রয়েছে। রাজাবাজার আড়ৎদার ও সাধারণ ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পরিমল প্রসাদ রাজ জানান, ‘নাবান্নের এই দিনে নতুন আলুর দাম শুধু একদিনের জন্য বেশি হয়। এই দাম আগামীকাল অর্ধেকের নিচে চলে আসবে।

জামাইদের নিয়ে বসেছে জমজমাট মাছের মেলা