in ,

ওয়ানডে সিরিজ খেলতে পাকিস্তানকে আমন্ত্রণ জানাবে আফগানিস্তান!


স্পোর্টস ডেস্ক : আফগানিস্তান জাতীয় দলের যেখানে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণই অনেকটা অনিশ্চয়তার মুখে, তখন দেশটির নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি আজিজুল্লাহ ফজলি জানিয়েছেন, তারা একদিনের সিরিজ খেলার জন্য পাকিস্তানকে আমন্ত্রণ জানাতে চায়। পাকিস্তানকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য এক সপ্তাহের মধ্যে সে দেশে সফরে যাবেন বলেও জানিয়েছেন আজিজুল্লাহ।

তালিবানরা ক্ষমতা দখল করার পর আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান নিযুক্ত করা হয় আজিজুল্লা ফজলিকে। তিনিই পরিকল্পনা করছেন, একদিনের সিরিজ খেলার জন্য পাকিস্তানকে আমন্ত্রণ জানাবেন। এই সপ্তাহের শেষের দিকে পাকিস্তান গিয়েই তাদেরকে আনুষ্ঠানিকভাবে সফরের আমন্ত্রণ জানাবেন তিনি।

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান গত ৫ বছরে ক্রিকেটে বিস্ময়কর উন্নতি সাধন করেছে। এর মধ্যে তারা টেস্ট মর্যাদাও লাভ করে। বিশ্বসেরা লেগ স্পিনার রশিদ খানসহ বেশ কিছু ভালোমানের ক্রিকেটারও জন্ম দিয়েছে তারা। প্রায় সব ফরম্যাটেই নিজেদেরকে একটা সমীহ জাগানিয়া দলে পরিণত করতে পেরেছে আফগানরা।

পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান এই মুহূর্তে বিশ্ব ক্রিকেটে এশিয়ার দু’টি প্রথম সারির দল। ২০১৯ সালে ক্রিকেট বিশ্বকাপে টানটান উত্তেজনার একটি ম্যাচ খেলেছিল পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান। যে ম্যাচে ৩ উইকেটে জিতেছিল পাকিস্তান।

এই সেপ্টেম্বরেই পাকিস্তান এবং আফগানিস্তানের বিশ্বকাপের সুপার লিগ সিরিজ খেলার কথা ছিল শ্রীলঙ্কায়; কিন্তু শ্রীলঙ্কায় করোনা বেড়ে যাওয়ার কারণে সিরিজ স্থগিত করা হয়। আজিজুল্লা ফজলি বলেছেন, ‘আমি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান রমিজ রাজার সঙ্গে দেখা করব এবং প্রস্তাব দেব একদিনের সিরিজটি খেলার জন্য, যেটা সেপ্টেম্বরে আমাদের খেলার কথা ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ২৫ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানে যাব। তারপর সেখান থেকে ভারত, বাংলাদেশ এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাব, ওই দেশের ক্রিকেট বোর্ডের কর্তাদের সঙ্গে দেখা করার জন্য। আমরা আফগানিস্তান ক্রিকেটকে আরও উন্নত করতে চাই। আমরা অন্য দেশেরও সাহায্য চাই এর জন্য।’

প্রসঙ্গতঃ এই বছরের শেষের দিকে পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচ খেলতে পারে আফগানিস্তান।

আফগানিস্তানের ক্ষমতা তালিবানদের হাতে যাওয়ার পর নারী ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ পুরোপুরি অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। ফলে দেশটি ভবিষ্যতে টেস্ট খেলতে পারবে কি না তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। কারণ, আইসিসির নিয়মেই রয়েছে, টেস্ট খেলতে হলে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট দেশের নারী ক্রিকেট দল থাকতে হবে।