Coronavirus (করোনাভাইরাস) অর্থনীতি-ব্যবসা জাতীয় স্লাইডার

করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ব্যাংক ঋণের ২ হাজার কোটি টাকা সুদ মওকুফের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

জুমবাংলা ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা ভাইরাস মহামারীর কারণে দেশব্যাপী বন্ধের প্রেক্ষিতে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যাংক ঋণ গ্রহিতাদের দুই মাসের সুদ মওকুফ করতে সরকারের পক্ষ থেকে ২ হাজার কোটি টাকার নতুন আরেকটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন। খবর বাসসের।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি এ পর্যন্ত ১৮টি প্যাকেজ দিয়েছি। আর এটা নিয়ে হলো ১৯ নং প্যাকেজ। যেহেতু নতুন প্যাকেজে গৃহীত ঋণের দুই মাসের সুদ স্থগিত করা হয়েছে, যে সুদের পরিমান ১৬ হাজার ৫শ’ কোটি ৪৯ কোটি। সেই স্থগিত সুদের মধ্যে ২ হাজার কোটি টাকা সরকার বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ভর্তুকি হিসেবে প্রদান করবে।’

‘ফলে, আনুপাতিক হারে ব্যাংক ঋণ গ্রহিতাদের আর তা পরিশোধ করতে হবে না, ’বলেন তিনি।

এ ব্যাপারে অর্থমন্ত্রী, অর্থসচিব এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্ণরসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে তিনি নতুন এই প্যাকেজ দিয়েছেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘যারা ঋণ নিয়েছেন তাদের জন্য আমরা বলেছি যে, এই দু’মাস যেহেতু সবকিছু বন্ধ তাই ঋণের সুদ টানার প্রয়োজন হবে না। সেখানে তাঁদেরকে আমরা কিছু সুযোগ সুবিধা দেব।’

তিনি বলেন, ‘যেহেতু নতুন প্যাকেজে গৃহীত ঋণের দুই মাসের সুদ স্থগিত করা হয় সেই সুদের পরিমান ১৬ হাজার ৫শ’ কোটি ৪৯ কোটি। সেই স্থগিত সুদের মধ্যে ২ হাজার কোটি টাকা সরকার বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ভর্তুকি হিসেবে প্রদান করবে। যা আনুপাতিকহারে ঋণের গ্রহিতাদের আর পরিশোধ করতে হবে না।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশের কারিগরি ও মাদ্রাসা বোর্ডসহ ১১টি শিক্ষা বোর্ডের এসএসসি এবং সমমানের পরীক্ষার ফল ঘোষণাকালে একথা বলেন।

ব্যাংক ঋণ গ্রহিতাদের ঋণের দায়মুক্তিই তাঁর সরকারের নতুন প্রণোদনার উদ্দেশ্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সুদের যে অবশিষ্ট অর্থ সেটা ১২টি মাসিক কিস্তিতে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ঋণ গ্রহিতাগণ পরিশোধ করবে।’

তিনি ব্যাখ্যা করেন ‘যে সুদটা প্রতিমাসে দিতে হোত এই দুই মাস যেহেতু দিতে পারেনি, তাই, আমরা সেটার জন্য ১২ মাসের একটা সময় দিয়ে দিচ্ছি। যাতে এই ১২ মাসে ধীরে ধীরে তাঁরা বাকীটা শোধ করতে পারবে, সেই ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সরকারের এই ২ হাজার কোটি টাকার ভর্তুকি প্রদানের ফলে, প্রায় ১ কোটি ৩৮ লাখ ঋণ গ্রহিতা, যারা বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছেন তাঁরা সরাসরি উপকার পাবেন। তাঁরা কোভিড-১৯ এর কারণে বন্ধ থাকা ব্যবসা-বাণিজ্য বা দোকান-পাট পুনরায় চালুর সুযোগ পাবেন।’

তিনি বলেন, ‘এই ১৯টি প্রণোদণা প্যাকেজের মোট পরিমান দাঁড়ালো এক লাখ ৩ হাজার ১১৭ কোটি টাকা। অর্থাৎ যা ১২ দশমিক ১৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের সমপরিমান এবং জিপিপির ৩ দশমিক ৭ শতাংশ।’


এর বাইরেও মুসলিম উম্মাহর সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উসব ঈদুল ফিতরের পূর্বে তাঁর সরকার প্রদত্ত মসজিদগুলোতে ইমাম- মোয়াজ্জিনদের জন্য এবং কওমী মাদ্রাসায় প্রদত্ত অনুদানের প্রসংগ টেনে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে ভিন্নভাবে এসব খাতে সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।’

‘এসব প্রণোদণা এবং আর্থিক সহযোগিতা বাজেটের ওপর চাপ ফেললেও সরকার আগামী ১১ জুন বাজেট ঘোষণা করবে’, উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যেই বাজেট তৈরীর কাজ শুরু করে দিয়েছি।’

গ্রামে হাস-মুরগী পালনকারী, মৎস চাষি, ছোট দোকানী, চায়ের দোকানদার, পণ্য বিক্রেতা-প্রত্যেকেই যেন তাঁদের জীবন-যাত্রা অব্যাহত রাখতে পারে সেজন্যই তাঁর সরকারের এই উদ্যোগ উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, ‘এই টাকা এমনি আসেনি। আমাদেরর অর্থনীতি সম্পূর্ণ স্থবির থাকায় এই টাকাগুলো সরকারকে ব্যাংক থেকে ধার করতে হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারই এখন টাকা ধার করে সকলের ব্যবসা-বাণিজ্য যাতে চালু, জীবন যাত্রাটা চলমান থাকে সেই ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।’

১ কোটি মানুষকে তালিকা প্রণয়ন করে ১০ টাকা কেজিতে চাল প্রদানের উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সাহায্য গ্রহিতাদের তালিকা যাতে যথাযথভাবে হয় সেজন্য যাচাই- বাছাই করে করা হয়েছে।’

এক সময়ে সমাজে অপাংক্তেয় শ্রেনী হিসেবে অতীতের সুবিধাবঞ্চিত হিজড়া, বেদেসহ নি¤œ আয়ের সকল লোকজনকে এর আওতায় আনার কথা উল্লেখ করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের জন্যই তাঁর রাজনীতি’ কাজেই ‘মানুষের যাতে কষ্ট না হয়’ তা নিশ্চিত করতে সরকার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি সচিবালয় থেকে অনলাইনে পরীক্ষার ফলের সংক্ষিপ্তসার প্রধানমন্ত্রীর নিকট হস্তান্তর করেন। শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যরিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং পিএমও সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া ও গণভবন প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন। মাধ্যমিক এবং উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

এ বছর সারাদেশ থেকে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ২০ লাখ ৪০ হাজার ২৮ জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করে ১৬ লাখ ৯০ হাজার ৫শ’ ২৩জন কৃতকার্য হয়। সারাদেশে গড় পাশের হার ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

গত বছর ১০টি শিক্ষা বোর্ডে এসএসসিও সমমানের পরীক্ষায় ২১ লাখ ২৭ হাজার ৮শ’১৫ অংশগ্রহণ করে ১৭ লাখ ৪৯ হাজার ১শ’ ৬৫ জন কৃতকার্য হয়। পাশের হার ছিল ৮২দশমিক ২০।

এসএসসি’র ফল প্রকাশ হলেও করোনার বিস্তার রোধে তাঁর সরকার স্কুল, কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখনই খুলে দেবে না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে আমরা এসএসসি, দাখিল এবং সমমানের পরীক্ষার রেজাল্ট দিলাম, হয়তো কলেজ আমরা এখন খুলবো না, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আমরা খুলতে পারছি না। কারণ, আমরা ধাপে ধাপে এগোতে চাচ্ছি। যাতে শিক্ষার্থীরা এই করেনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়।’

আজকের শিক্ষার্থীরাই জাতির ভবিষ্যত আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, ‘কাজেই জাতির ভবিষ্যতকে আমি ঝুঁকিতে ফেলতে পারি না। সে কারণেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আমরা উন্মুক্ত করবো না।’

‘দেখি এই অবস্থার থেকে উত্তোরণ ঘটাতে পারলে পর্যায়ক্রমিক ভাবে আমরা এগুলো উন্মুক্ত করবো। তবে, সবাইকে আমি অনুরোধ করবো সকলে যাতে ঘরে বসে একটু পড়াশোনা করে,’ যোগ করেন তিনি।


যাদের বাচ্চা আছে, এই এক গেইমে আপনার বাচ্চার লেখাপড়া শুরু এবং শেষ হবে খারাপ গেইমের প্রতি আসক্তিও।ডাউনলোডকরুন : http://bit.ly/2FQWuTP


আরও পড়ুন

ইতালিতে ফের করোনার থাবা, আক্রান্তদের বেশিরভাগ বাংলাদেশি

rony

সর্বনাশা করোনার টিকা কবে আসছে, সেই সুখবর দিলেন গবেষকরা

rony

পাওয়া গেল না অ্যাম্বুলেন্স, অটোতে করে করোনায় মৃতের দেহবহন

rony

শেষ ধাপে চীনা প্রতিষ্ঠান ক্যানসিনোর করোনা টিকা, পাওয়া গেল যে সুখবর

rony

স্ত্রীসহ লেজিসলেটিভ সচিব করোনায় আক্রান্ত

Sabina Sami

আজও দেশের ২০ অঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টির আশঙ্কা

Sabina Sami