কর্ণফুলীতে ডুবে গেলো নোঙর করা জাহাজ

জুমবাংলা ডেস্ক : চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীতে এফভি ক্রিস্টাল-৮ নামের একটি ফিশিং জাহাজ ডুবে গেছে। তবে জাহাজে থাকা সব নাবিককে সরিয়ে নেয়ায় তারা নিরাপদে আছেন।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটা থেকে চারটার মধ্যে শিকলবাহা শাহ আমানত সেতু এলাকায় নোঙর থাকা অবস্থায় জাহাজটি ডুবে যায়। ডুবে যাওয়া জাহাজটি ক্রিস্টাল গ্রুপের। তবে নোঙ্গর থাকা অবস্থায় জাহাজটি কীভাবে ডুবে যায় তার কারণ জানা যায়নি।

ডুবে যাওয়া মাছ ধরার এ জাহাজটির মালিক চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক সভাপতি মোরশেদ মুরাদ ইব্রাহীমের পারিবারিক গ্রুপ ক্রিস্টাল গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানটি ঋণখেলাপি।

মোরশেদ মুরাদ দেশ ছেড়ে কানাডায় পাড়ি জমিয়েছেন বছর খানেক আগে। জাহাজটি এখন আরেকটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছে।

জাহাজের নাবিকরা জানান, ফিশিং জাহাজটি ড্রাই ডকিং করার জন্য শাহ আমানত সেতু এলাকায় অবস্থান করছিল। রাতে জাহাজের তলাফেটে অথবা বুস দিয়ে পানি লিক করে জাহাজে পানি ডুকে যায়। জাহাজে পানি দেখতে পেয়ে জাহাজে থাকা নাবিকরা চিৎকার করলে আশেপাশের নৌযান গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। এক পর্যায়ে জাহাজটি পানিতে তলিয়ে যায়।

ক্রিস্টাল গ্রুপ সূত্রে জানা যায়, রাত ১১টার দিকে নাবিকরা লক্ষ্য করেন যে এটা পানিতে নিমজ্জিত হয়ে যাচ্ছে। তাদের হৈচৈ চিৎকার শুনে আশে পাশে থাকা বিভিন্ন নৌযানের লোকজন দ্রুত সেখানে এসে উদ্ধার করেন। অবশ্য দু’জনকে পাওয়া গেছে বুধবার ভোরে। ইঞ্জিন বিকল থাকায় রক্ষা করার সবচেষ্টা ব্যর্থ করে জাহাজটি স্বল্প সময়ের মধ্যে ডুবে গেছে।

আরও জানা যায়, তাদের সবচেয়ে বড় এই জাহাজটি কিছুদিন আগে সমুদ্রে মৎস্য আহরণে গিয়ে এর ইঞ্জিন বিকল বিকল হয়ে পড়ে। তখন জাহাজটিকে কর্ণফুলীতে এনে রাখা হয়। ইতোমধ্যে ওসেন ডকইয়ার্ডের সাথে তাদের কথা হয়েছে মেরামতের ব্যাপারে। মঙ্গলবার এফ বি ক্রিস্টাল-৮ কে নিয়ে এসে শাহ আমানত সেতুর কাছে ওসেন ডকইয়ার্ডের সন্নিকটে নোঙরে রাখা হয়। বুধবারই জাহাজটি ডকে তোলার কথা ছিল।

চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব মো. ওমর ফারুক জানান, জাহাজটি যেখানে ডুবেছে সেখানে সমুদ্রগামী জাহাজ চলাচল করে না। ফলে জাহাজ চলাচলে কোনো সমস্যা হচ্ছে না।

কোস্টগার্ড পূর্বজোনের স্টাফ অফিসার (অপারেশন) লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মো. হাবিবুর রহমান বলেন, সাগরে মাছ ধরা বন্ধ আছে। ছোট জাহাজটি শিকলবাহা এলাকায় নোঙর করে মেরামত করা হচ্ছিল। রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে জাহাজের তলা ফেটে পানি ঢুকতে থাকে। জাহাজে ৭-৮ জন নাবিক ছিল। তারা চিৎকার করলে আশপাশে থাকা নৌযান গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।

তিনি জানান, জোয়ারের সময় জাহাজটি পুরোপুরি ডুবে থাকে। ভাটার সময় একাংশ ভেসে ওঠে। কোস্টগার্ডের পক্ষ থেকে ডুবে যাওয়া জাহাজের আশপাশ দিয়ে নৌযান চলাচলে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। মালিকপক্ষকে জাহাজটি দ্রুত উদ্ধার করে ডকে রিয়ে যাবার জন্য বলা হয়েছে।


জুমবাংলানিউজ/এসআই