গ্যাসের দাম বৃদ্ধি ও ফসলের ক্ষতির কারণে মুদ্রাস্ফীতি বাড়বে : বিশ্বব্যাংক

World_bank-2নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রাকৃতিক গ্যাসের দাম বৃদ্ধি এবং সম্ভাব্য ফসলের উৎপাদন ক্ষতির অন্তর্ভুক্তির কারণে মুদ্রাস্ফীতি সামান্য বৃদ্ধি পাবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। এসময় ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার ৭.২ শতাংশ হতে পারে বলেও জানায় আন্তার্জাতিক এ সংস্থা।

আজ বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের কনফারেন্স রুমে ‘বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি: শিক্ষাব্যবস্থা ও জব স্কিলস’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে অনুসারে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জিডিপি প্রবৃদ্ধি সরকারিভাবে আনুমানিক ৮.১ শতাংশ বলে ধরা হয়েছিল, যা গত অর্থবছরের ৭.৯ শতাংশের তুলনায় বেশি ছিল। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যদিও এটি আগামী অর্থবছরের তুলনামূলকভাবে কম প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, আর্থিক খাতে সংস্কার, অবকাঠামোগত ব্যবধান বন্ধ করা এবং বার্ষিক উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন দেশের অগ্রগতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

এটি বৈশ্বিক অর্থনীতিতে অনিশ্চয়তা, আর্থিক খাতে অভ্যন্তরীণ ঝুঁকি এবং বিনিময় হারের প্রশংসা সম্পর্কে সতর্ক করে যা বাংলাদেশের প্রতিযোগিতার জন্য একটি চ্যালেঞ্জ তৈরি করতে পারে।

বাংলাদেশ ও ভুটানের জন্য বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মারসি মিয়াং টেম্বন বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি সুদৃড় অর্থনৈতিক মৌলিক ভিত্তি এবং কাঠামোগত সংস্কারের অগ্রগতির দ্বারা দৃঢ় প্রবৃদ্ধি বজায় রাখার প্রত্যাশা করে।

তিনি বলেন, এই প্রবৃদ্ধি অর্জনের জন্য বাংলাদেশের একটি উচ্চ উৎপাদনশীল অর্থনীতি প্রয়োজন হবে। উচ্চ স্তরের দক্ষতা এবং দ্রুত প্রযুক্তিগত অগ্রগতির জন্য শ্রম বাজারের চাহিদার জন্য প্রতিক্রিয়াশীল মানব মূলধন উন্নয়ন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ইকোনমিস্ট বার্নার্ড হ্যাভেন বলেন, শ্রমবাজারের সমীক্ষা বারবার দেখায় যে নিয়োগকর্তারা এই জাতীয় দক্ষ প্রযুক্তিবিদ এবং পরিচালকদের উচ্চ দক্ষতার পদ পূরণের জন্য লড়াই করছেন।

তিনি বলেন, চাহিদা ও সরবরাহের ব্যবধান দূর করতে দেশকে দক্ষতা প্রশিক্ষণে বিনিয়োগ করতে হবে, মহিলা ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের ন্যায্য প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে হবে, বাজার সম্পর্কিত প্রাসঙ্গিক দক্ষতা বিকাশের জন্য সরকারি তহবিল ব্যবস্থা স্থাপন এবং কার্যকর একটি নিয়ন্ত্রণকারী এবং জবাবদিহিতার কাঠামো প্রয়োজন।

প্রতিবেদনে দেখা গেছে, কলেজের স্নাতকদের মাত্র ১৯ শতাংশ পূর্ণকালীন বা খণ্ডকালীন কর্মরত এবং তৃতীয় স্তরের স্নাতকদের এক তৃতীয়াংশ স্নাতক হওয়ার এক বা দুই বছর পরে বেকার রয়েছেন।

আজকের জনপ্রিয়:
>> আয়ু কমে যাওয়ার ৭ কারণ
>> সন্তানদের যে আমলের অভ্যাস করানো জরুরি
>> ছেলেদের যে বিষয়গুলো মেয়েরা সবার আগে খেয়াল করে


Share:





জুমবাংলানিউজ/পিএম

Add Comment