জাতীয়

গ্রামপুলিশের বেতন-ভাতার গেজেট প্রকাশ

জুমবাংলা ডেস্ক : ঢাকা জেলার ধামরাই থানার ৬ নং কুশুরা ইউনিয়ন পরিষদের গ্রামপুলিশ দফাদার মোঃ লালমিয়ার রিট আবেদনের পরিপেক্ষিতে ২০১৭ সালের ৩ ই ডিসেম্বর রুল দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। গ্রাম পুলিশের মধ্যে মহল্লাদারদের জাতীয় বেতন স্কেলের ২০তম গ্রেড এবং দফাদারদের ১৯তম গ্রেডে বেতন দিতে নির্দেশ দিয়ে উচ্চ আদালতের দেওয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশিত হয়েছে।

গত বছরের ১৫ ও ১৭ ডিসেম্বর এ রায় দিয়েছিলেন বিচারপতি মো. আশরাফুল কামাল ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ। সম্প্রতি এ রায় সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়।

আদালতে রিট আবেদনকারীদের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী হুমায়ন কবির, মো. মোজম্মেল হক, মোহাম্মদ কাওসার, মোহাম্মদ মাজেদুল কাদের ও নূর আলম সিদ্দিকী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ওয়ায়েস আল হারুনী, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ইলিন ইমন সাহা, শায়রা ফিরোজ ও মাহফুজুর রহমান লিখন।

রায়ে বলা হয়, সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩১ মোতাবেক আইনানুযায়ী ব্যতীত কোনো ব্যক্তিকে তার ন্যায্য অধিকার থেকে তথা ন্যায্য প্রাপ্যতা থেকে তথা ন্যায্য প্রত্যাশা থেকে তথা আইনসম্মত অধিকার থেকে বঞ্চিত করা যায় না।


‘বর্তমান মোকাদ্দামায় দরখাস্তকারীরাসহ সব মহল্লাদার ও দফাদারদের ন্যায্য অধিকার বিধিমালা ২০১১ অনুযায়ী বেতন-ভাতাদি পাওয়া কথা। কিন্তু প্রতিপক্ষরা দরখাস্তকারীরাসহ সব মহল্লাদার ও দফাদারদের ন্যায্য অধিকার থেকে বেআইনিভাবে দীর্ঘদিন ধরে বঞ্চিত করে আসছে।’

রায়ের আদেশ অংশে বলা হয়, ২০১১ সালের ২ জুন থেকে মহল্লাদারদের জাতীয় বেতন স্কেল ২০০৯ (বর্তমানে জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫) এর ২০তম গ্রেডে বেতন-ভাতাদি দিতে এবং দফাদারদের জাতীয় বেতন স্কেল ২০০৯ (জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫)এর ১৯তম গ্রেডে বেতন-ভাতাদি দিতে প্রতিপক্ষদের নির্দেশ দেওয়া হলো।

আরও বলা হয়, ২০১১ সালের ২ জুনের পর থেকে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) কর্মচারী চাকরি বিথিমালা ২০১১ বহির্ভূতভাবে মহল্লাদার ও দফাদার এর যেকোনো নিয়োগ অবৈধ ও বেআইনি মর্মে গণ্য হবে। ২ জুনের পর থেকে বিধিমালা ২০১১ বহির্ভূত যেকোনো নিয়োগ আপনা আপনি বাতিল।

ঢাকার ধামরাইয়ের টুপিরবাড়ীর হাটকুশারা এলাকার বাসিন্দা লাল মিয়াসহ কয়েকজন গ্রাম পুলিশ সদস্যের করা রিটে ২০১৭ সালের ৩ ডিসেম্বর রুল দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

ওইদিন হুমায়ন কবির বলেছিলেন, ব্রিটিশ আমল থেকে এ বাহিনী বিভিন্ন আইনের অধীনে কাজ করে আসছে। সর্বশেষ স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ সালের অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এ আইনের অধীনে ২০১৫ সালে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) গ্রাম পুলিশ বাহিনীর গঠন, প্রশিক্ষণ, শৃঙ্খলা ও চাকরির শর্তাবলী সম্পর্কিত বিধিমালা তৈরি করা হয়।

কিন্তু এ বিধিতে তাদের কোনো শ্রেণি নির্ধারণ করা হয়নি। এদিকে এক দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৮ সালের স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় গ্রাম পুলিশদের চতুর্থ শ্রেণির স্কেল নির্ধারণে অর্থ বিভাগকে চিঠি দেন। কিন্তু কোনো সিদ্ধান্ত তারা না নেওয়ায় হাইকোর্টে রিট করা হয় বলে জানান হুমায়ন কবির।


যাদের বাচ্চা আছে, এই এক গেইমে আপনার বাচ্চার লেখাপড়া শুরু এবং শেষ হবে খারাপ গেইমের প্রতি আসক্তিও।ডাউনলোডকরুন : http://bit.ly/2FQWuTP


আরও পড়ুন

ইয়াবা নিয়ে নয়, দুঃসাহসিক ট্রাভেল ভিডিও তৈরি করছিলেন মেজর (অব.) সিনহা

mdhmajor

চিন্তা দূর করতে যে দোয়া পড়বেন

Sabina Sami

দেশবাসিকে সব সত্য বলে দিবেন মেজর (অব.) সিনহার দুই সহযোগী শিপ্রা-সিফাত

mdhmajor

সিনহা হত্যাকাণ্ড ছিল পরিকল্পিত!

Saiful Islam

প্রাথমিকের উদ্দেশে যা বললেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

Shamim Reza

রিমান্ডের আদেশের পর বিচারকের কাছে সাহেদের আবদার

Shamim Reza