জাতীয় পরিচয়পত্রের শর্তে আটকে গেছে টিকা নিবন্ধন

জুমবাংলা ডেস্ক : ৯ দিন অপেক্ষার পর করোনাভাইরাস প্রতিরোধক টিকা নিতে সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধনের সুযোগ পেয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) আবাসিক শিক্ষার্থীরা। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে নিবন্ধনের জন্য নির্বাচিতদের তালিকায় নাম থাকলেও জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকায় নিবন্ধন করতে না পেরে বিপাকে পড়েছেন অনেকে। কর্তৃপক্ষ থেকে যথাযথ নির্দেশনা না থাকায় নিবন্ধন ও টিকা নিয়ে ধোঁয়াশায় রয়েছেন এসব শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত ২ জুলাই ইউজিসি ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে টিকার জন্য সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধনের নির্দেশনা দিয়ে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। তবে টেকনিক্যাল সমস্যার জন্য ৯ দিন পর আজ রবিবার দুপুর থেকে অ্যাপে নিবন্ধন করতে পারছেন শিক্ষার্থীরা। একই দিন দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে নিবন্ধনের জন্য নির্বাচিতদের একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিকাসংক্রান্ত ফরমে আবাসিক হিসেবে জমা দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এ তালিকা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বিশ্ববিদ্যালয় এ তালিকা করার সময় আবাসিক শিক্ষার্থীরা এনআইডি ও জন্মসনদের নম্বর দিয়ে ফরম পূরণ করেন। কিন্তু সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধনের ক্ষেত্রে জন্মসনদের নম্বর ব্যাবহারের সুযোগ না থাকায় নির্বাচিত হয়েও আবাসিক শিক্ষার্থীদের একটি বড় অংশ নিবন্ধন করতে পারছেন না। তালিকায় নাম থাকা অন্যদের নিবন্ধন হলেও এনআইডি না থাকা শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েন। এ বিষয়ে সঠিক দিক-নির্দেশনার অভাবে অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে নিবন্ধন নিয়ে সংশয় ও আতঙ্কের কথা তুলে ধরেন।

এ ছাড়া প্রথম ধাপে শুধু আবাসিক শিক্ষার্থীদের নিবন্ধনের কথা বলা হলেও অনেক অনাবাসিক শিক্ষার্থীও তালিকাভুক্ত হয়ে নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন বলে জানা গেছে।

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব হলের আবাসিক শিক্ষার্থী ফারহানা ইয়াসমিন বলেন, ‘আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরমে জন্ম সনদ দিয়ে আবেদন করেছিলাম। ওয়েবসাইটে যে তালিকা দেওয়া হয়েছে তাতে আমার নাম রয়েছে। কিন্তু আমি সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধন করতে পারছি না। আমাদের করণীয় কী তা-ও জানি না। বুঝছি না কী করব।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেলের পরিচালক অধ্যাপক ড. আহসানুল আম্বিয়া বলেন, ‘ইউজিসি থেকে আমাদের জানানো হয়েছে এনআইডি না থাকলে এখন নিবন্ধন সম্ভব না। তাই তালিকায় যাদের নাম এসেছে তাদের ক্ষেত্রে পরামর্শ হলো নিকটস্থ নির্বাচন অফিসে যোগাযোগ করলে হয়তো দ্রুত এনআইডি করা যাবে। জন্মসনদ দিয়ে রেজিস্ট্রেশনের বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’


জুমবাংলানিউজ/এসআর