in

জাপানি সেই দুই শিশুর ব্যাপারে আদালতের নতুন সিদ্ধান্ত

জুমবাংলা ডেস্ক: জাপানি দুই শিশুর বিষয়ে এবার নতুন সিদ্ধান্ত দিয়েছেন আদালত। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) থেকে ২৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত একদিন মা ও একদিন বাবা নিয়ম করে সন্তানদের সঙ্গে গুলশানের ভাড়া বাসায় থাকবেন।

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
দুই শিশুর অভিভাবকত্বের বিষয়টি নিয়ে সম্মানজনক ও শিশুদের ভবিষ্যতের জন্য একটি সুস্থ পরিবেশ নিশ্চিত করার ওপর জোর দেন আদালত।

এ সময় জাপানি দুই শিশু জন্মসূত্রে জাপানি নাগরিক উল্লেখ করে, তাদের সে দেশে নিয়ে যাওয়ার আবেদন করেন আইনজীবী। যুক্তি হিসেবে তিনি বলেন, জাপানের আদালতে শিশুদের ১৮ বছর পর্যন্ত মায়ের কাছে থাকার বিধান রয়েছে।

তবে আদালত জানান, অন্য দেশের আদালতের প্রতি সম্মান রয়েছে, দেশের ভাবমূর্তির স্বার্থে তার সম্মান যেমন রাখতে হবে তেমনি একটি সুষ্ঠু সমাধানের পথও তৈরি করতে হবে।

এদিকে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচারের অভিযোগ এনে দুই শিশুর মা ও জাপানি নারী নাকানো এরিকোকে এবার লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছে তার সাবেক স্বামী শরিফ ইমরান।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ইমরান শরীফের পক্ষে তার আইনজীবী ফাওজিয়া করিম মঙ্গলবার দুই সন্তানের মা নাকানো এরিকোর গুলশানের ঠিকানায় এ নোটিশ পাঠান।

নোটিশে বলা হয়, মা নাকানো এরিকো মিথ্যা তথ্য দিয়ে বাবা ইমরান শরীফের মানহানি করছেন। ফলে মানহানিকর বক্তব্য দেয়ায় জনসমক্ষে ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে নাকানোকে। ক্ষমা না চাইলে তার নামে মামলা করা হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে নোটিশে।

নোটিশে আরও বলা হয়, বাংলাদেশে এসে নাকানো বিভিন্নভাবে শিশু দুটির বাবাকে হয়রানি ও মানহানি করেছেন। তারা বলছে, শিশু দুটিকে নাকি বাবা জাপান থেকে কিডন্যাপ করে নিয়ে এসেছেন। কানাডিয়ান স্কুলে চিঠি দিয়ে বলা হয়েছে, বাবা নাকি শিশু দুটিকে অপহরণ করেছেন। যাতে শিশু দুটির স্কুলের ভর্তি বাতিল হয়।

সেখানে চোখ বেঁধে নিয়ে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে, যাকে সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে নোটিশে তুলে ধরা হয়। অথচ তার কোনো চোখ বাঁধা হয়নি। এসব মিথ্যা তথ্য দিয়ে শিশু দুটির বাবার মানহানি করেছে। বারবার শিশুর বাবাকে অপহরণকারী বলা হয়েছে। এভাবে বলে বাবাকে নানাভাবে হয়রানি করছে- এমন অভিযোগ করা হয় নোটিশে।

সাত দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণের ৫ কোটি টাকা না দিলে এবং প্রকাশ্য ক্ষমা না চাইলে নাকানো এরিকোর বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে উল্লেখ করা হয় আইনি নোটিশে।