in ,

জিএম কাদেরের শরণাপন্ন হলেন কাদের মির্জা

জুমবাংলা ডেস্ক : নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম স্বপনকে আহত করা নিয়ে জাতীয় সংসদে মশিউর রহমান রাঙ্গার বক্তব্যকে ‌‘মিথ্যাচার’ বলে দাবি করেছেন বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। এ ব্যাপারে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের শরণাপন্ন হয়ে তিনি বলেন, ‘আপনি তদন্ত করে দেখুন। যদি স্বপনকে আমি বা আমার কেউ আহত করে থাকে তবে আমরা বিশেষ করে আমি যে কোনো শাস্তি মাথা পেতে নেবো। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাত ৯টায় বসুরহাট পৌরসভা কার্যালয় থেকে ফেসবুকে লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

জিএম কাদেরকে নীতি-নৈতিকতা সম্পন্ন রাজনৈতিক নেতা উল্লেখ করে কাদের মির্জা বলেন, ‘আপনার সততার ব্যাপারে আপনার বড় ভাই সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আমাকে বলে গেছেন। ফেনীর আলাউদ্দিনের একটি অনুষ্ঠানে ওনার সঙ্গে এক টেবিলে আমার খাওয়ার সুযোগ হয়েছিল। সেখানেই আপনার ব্যাপারে কথা হয়।’ তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে বহু আগ থেকে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। ২০০১ সালে মওদুদ সাহেবরাও নারায়ণগঞ্জের শামীম ওসমান, ফেনীর জয়নাল হাজারীর সঙ্গে আমি আবদুল কাদের মির্জাকেও গডফাদার বানাতে চেয়েছিল।’

কাদের মির্জা বলেন, ‘আমার সঙ্গে কেউ নেই। আমার সঙ্গে আল্লাহ আছে। এলাকায় খবর নেন। আমার পক্ষে যদি ৭০-৮০ ভাগ লোক না থাকে তাহলে হিজরত করবো।’ বড় ভাই ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘তিনি বড় ক্ষমতাধর। তাই সব আত্মীয়-স্বজনকেও তিনি ও তার স্ত্রী আমার বিরুদ্ধে নিয়ে গেছেন। আমার কর্মীরা জেলে পচছে। তিনি দেখবেন বলেছেন। কিন্তু কথা রাখেননি।’

কাদের মির্জা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছি বলে ওবায়দুল কাদের আমার অনেক লোককে গালাগাল করেছেন। কিন্তু আমি তো প্রথম শ্রেণির পৌরসভার মেয়র। আমার প্রধানমন্ত্রীর কাছে যেতে কি কারো সাহায্য লাগে?’ আলোচিত এ মেয়র আরও বলেন, ‘আমি অসুস্থ। তবে কে কী বললো তাতে আমার অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে কোনো বাধা হবে না। তবে আমি সত্য বলে যাবো। অপরাজনীতির বিরুদ্ধে কথা বলে যাবো। এতে আমার যা হয় হবে।’

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) জাতীয় সংসদে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই ও বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার বিচার চাওয়া হয়েছে। জাতীয় পার্টির (জাপা) কোম্পানীগঞ্জের উপজেলা সেক্রেটারি সাইফুল ইসলাম স্বপনকে মারধরের অভিযোগ এনে সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জাপার দুই এমপি এ বিচার দাবি করেন। এসময় কাদের মির্জাকে তারা অবাঞ্ছিত লোক বলে অভিযোগ করেন।