ত্ব-হাকে ফিরে পাওয়ায় যা বললেন স্ত্রী

নিখোঁজ হওয়ার ৮ দিনের মাথায় তরুণ ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান উদ্ধার হয়েছেন। শুক্রবার (১৮ জুন) কোতোয়ালি থানার ওসি আবদুর রশিদ গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। নিখোঁজের বেশকিছু দিন পর উদ্ধার হওয়ায় তার স্ত্রী ও স্বজনদের মাঝে স্বস্তি ফিরেছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমের কাছে তার স্ত্রী সাবিকুন্নাহার বলেন, স্বামীকে দেখতে রংপুর যাচ্ছি না। আমি রংপুর কেন যাব? দেখি কী হয়। বলতে তো পারছি না, ওরা যদি গ্রেপ্তার দেখায় কোনো মামলায়।

আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের শ্যালক মো. জাকারিয়া বলেন, আবু ত্ব-হা শুক্রবার জুমার নামাজের পর তাদের রংপুরের বাড়িতে ফিরে আসার খবর পেয়েছেন তিনি। আলোচিত ইসলামী বক্তাকে ফিরে পাওয়ার পর তার ভাই তারেক বলেন, ত্ব-হা এসে পানি খেয়েছে। এরপর থানার ওসি সাহেব জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে গেলো। আমরা তার সাথে কথা বলার সুযোগই পেলাম না। তাকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত দেখাচ্ছিল। তার জন্য দোয়া করবেন। সুস্থ হয়ে যেন আবার দ্বীন প্রচার করতে পারে।

প্রসঙ্গত, গত ১০ জুন রংপুর থেকে ঢাকায় আসার পথে রাজধানীর গাবতলী এলাকা থেকে ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান নিখোঁজ হন। এছাড়াও তার সঙ্গে নিখোঁজ হয়েছেন আব্দুল মুহিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দীন। ত্ব-হার নিখোঁজ হওয়ার তথ্য জানিয়ে দারুসসালাম এবং মিরপুর থানায় গেলে কোনো থানাই সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি বলেও অভিযোগ করেছেন তার পরিবার। এ নিয়ে সর্বশেষ রংপুর সদর থানায় একটি জিডি করা হয়।

তার নিখোঁজ হওয়া নিয়ে আলোচনার মধ্যে শুক্রবার ত্ব-হার খোঁজ মেলে। বিপ্লব মিয়া নামে এক প্রতিবেশী জানান, শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আবু ত্ব-হাকে তার শ্বশুর আজহারুল ইসলাম মন্ডলের বাড়িতে ঢুকতে দেখেন তিনি। পরে তাকে রংপুর নগরের আবহাওয়া অফিস সংলগ্ন মাস্টার পাড়ার ওই বাড়ি থেকে নিয়ে যায় পুলিশ।

সংবাদ সম্মেলনে রংপুর মহানগর পুলিশের (আরএমপি) ক্রাইম ডিভিশনের উপ-কমিশনার আবু মারুফ হোসেন বলেন, মা ও ভাইয়ের জিডির সূত্রে আমরা (ত্ব-হার) অনুসন্ধান করতে থাকি। আজকে আমরা গোপন সূত্রে জানতে পারি ত্ব-হা তার (রংপুর নগরের) চারতলার মসজিদে প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে আছেন। সেই সংবাদ পেয়ে আমরা তাকে নিয়ে আসি। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে আমরা অপর সঙ্গীদেরও সন্ধান পাই।

আবু মারুফ হোসেন বলেন, গাইবান্ধায় বন্ধু সিয়ামের বাসায় ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন চারজনেই। বন্ধু বাসায় না থাকলেও তার মায়ের কাছে ছিলেন এরা। ব্যক্তিগত ও পারিবারিক কারণে ত্ব-হা আত্মগোপনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। সফরসঙ্গীরাও তাদের ফোন বন্ধ করে ত্ব-হার কাছে রেখে দেন।


জুমবাংলানিউজ/ জিজি