in

দুই ভাই-বোনের মাসিক আয় ২৯ লাখ টাকা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভাইয়ের বয়স ১৪ এবং বোনের বয়স ৯ বছর। এই দুই ভাইবোন মিলে মাসে অনলাইন থেকে আয় করেন ২৯ লাখ টাকা। আয়ে শুনেই চোখ ছানাবড়া। তবে আশ্চর্য হওয়ার কিছুই নেই, যা শুনেছেন ঠিকই শুনেছেন।

ক্রিপ্টো কারেন্সির বিষয়টি অনেকের কাছেই একটা গোলকধাঁধার মতো। কিন্তু চৌদ্দ বছরের ঈশান এবং নয় বছরের অনন্যার কাছে তা যেন নস্যি! ভারতীয় বংশোদ্ভূত দুই ভাই-বোন বর্তমানে এই ক্রিপ্টো কারেন্সি থেকেই মাসে আয় করছে ৩৫ হাজার ডলার (যা বাংলাদেশি টাকায় ২৯ লাখের বেশি)।

যেখানে অনেকেই ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে হিমশিম খান, এই বয়সে দুজনে তা আয়ত্ত করল কী ভাবে? তাও আবার পাকা পেশাদারদের মতো। কোথা থেকেই এই ক্ষেত্রে বিনিয়োগের পরিকল্পনা তাদের মাথায় এল?

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমকে এ প্রসঙ্গে ঈশান জানিয়েছে, সাত মাস আগে ক্রিপ্টো কারেন্সি, বিটকয়েন এই শব্দগুলি সম্পর্কে শুনেছিল সে। বিষয়টি নিয়ে প্রবল আগ্রহ তৈরি হয়। এরপরই বিষয়টি নিয়ে ইউটিউব এবং বিভিন্ন পত্রিকা ঘাঁটাঘাটি শুরু করে সে। তার কথায়, তখনই ক্রিপ্টো কারেন্সিতে বিনিয়োগের পরিকল্পনা মাথায় আসে। কিন্তু বিনিয়োগ করার মতো অত টাকা ছিল না আমাদের কাছে। তাই ঠিক করেছিলাম বিনিয়োগ করার আগে ক্রিপ্টো কারেন্সিতে বিনিয়োগের জন্য সঠিক সামগ্রী কিনব। অন্য দিকে তার বোন অনন্যা বলে, ভাইয়া আর আমি দুজনে মিলে এই বিনিয়োগের পরিকল্পনা করি। বিষয়টি ভাল লাগার পর ভাইয়াকে এ বিষয়ে উৎসাহ দিয়েছি।

তবে কয়েক দিনের মধ্যেই বিষয়টি আয়ত্ত করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছে দুজনে। সাত মাস ধরে ইউটিউব ঘেঁটে, বিটকয়েন এবং ক্রিপ্টো সংক্রান্ত নানা পত্রিকা পড়ে বিনিয়োগ সম্পর্কে ভালভাবে জানার চেষ্টা করেছে তারা। তারপরই গেম খেলার জন্য কেনা নিজের কম্পিউটারকে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগের উপযোগী করে তোলে। এমনটাই জানিয়েছে ঈশান। শুরুতে দিনে ৩ ডলার আয় করে ঈশান। এখন সেখান থেকে মাসে ৩৫ হাজার ডলার আয় করছে এই কিশোর।

তবে এটা পেশা হিসেবে নিবে কিনা এমন প্রশ্নে ঈশান জানায়, এখনও সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। আপাতত এই টাকা নিজেদের উচ্চশিক্ষার জন্য খরচ করতে চাই। সূত্র: আনন্দবাজার