Views: 164

অর্থনীতি-ব্যবসা কৃষি জাতীয় বিভাগীয় সংবাদ

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে আগাম আলু চাষ করে বিপাকে কৃষকরা


কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি: লাভের আশায় আগাম আলু চাষ করে বিপাকে পড়েছেন নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের আলুচাষিরা। অতিবৃষ্টিতে আগাম আলু চাষিদের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে।

রোপনকৃত আগাম আলু গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে তলিয়ে যাওয়ায় খেত থেকে বীজ তুলে নিয়েছে অনেক কৃষক। অনেকে বীজ পরিচর্যা, হাল চাষ ও সার প্রয়োগ করে জমি তৈরি পূর্বক আগাম আলু রোপনের প্রস্তুতি নিলেও অতিবৃষ্টির কারণে তৈরিকৃত জমি পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় আগাম আলু লাগাতে পারেনি। ফলে এ বছর বৈরি আবহাওয়া ও আশ্বিনী বৃষ্টি কেড়ে নিয়েছে আগাম আলু চাষিদের স্বপ্ন।

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের জমি আবাদের জন্য উর্বর হওয়ায় আগাম ও নমলা আলু চাষাবাদের পাশাপাশি এ জমিগুলোতে ফলছে চার ফসল। আগাম আলু এ এলাকার কৃষকের দিন বদলের ফসল। এখানকার আলু এলাকার চাহিদা পূরণ করে ঢাকা, চট্রগ্রাম, খুলনা, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হয়।


আগাম আলু চাষ করে এ এলাকার মানুষ তাদের ভাগ্য বদল করেছে। কিন্তু এ বছর অনেকে আগাম আলু রোপন করে আশ্বিনা বৃষ্টিতে জমি তলিয়ে যাওয়ায় জমি থেকে আলু বীজ তুলে নিয়েছে। অন্যদিকে আগাম আলু রোপনের জন্য তৈরিকৃত জমি পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় সঠিক সময়ে কৃষকরা বীজ রোপন করতে পারছে না। পানি শুকিয়ে যাওয়ার পর আবারও ওই জমি গুলো সার ও চাষ দিয়ে প্রস্তুত করতে হবে। এতে চাষাবাদে ব্যয়ও বাড়বে। আবার বৈরি আবহাওয়ার কারণে অনেক কৃষক আগাম আলু রোপনে ভুগছে সিদ্ধান্তহীনতায়। এর ফলে এ বছর নতুন আলু বাজারে আসতে দেরি হবে। দাম কম পাওয়ার আশংকাও রয়েছে। ফলে এ এলাকার ভাগ্য বদলের ফসলটি এ বছর কৃষকদের মুখের হাসি কেড়ে নিতে পারে। বৈরি আবহাওয়ার কারণে ফলনও কম হওয়ার আশংকা করছে অনেক কৃষক।

বাহাগিলী ইউনিয়নের উত্তর দুরাকুটি গ্রামের কৃষক এজাবুল হক লালবাবু সম্প্রতি ১ একর জমিতে আগাম জাতের আলু রোপণ করেন। ওই দিন থেকে টানা বর্ষণে তার আলু খেতটি প্লাবিত হয়। ফলে বীজ পচনের আশংকায় সোমবার আলু খেতে পানির নিজ থেকে বীজ উত্তোলন করে বাড়ী রাখে। ওই কৃষক জানান, দামের আশায় আগাম আলু রোপন করেছি। কিন্তু টানা বর্ষণ সে স্বপ্ন কেড়ে নিল। হাল চাষ, সার ও শ্রমিকসহ এক লক্ষ টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছি।

ওই গ্রামের আর এক কৃষক বেলাল হোসেন জানান, বাজার দর বেশি পাওয়ার আশায় ৩০ শতাংশ জমিতে আলু রোপন করেছি। কিন্তু অতিবৃষ্টির কারণে খেতে পানি জমায় বীজ পচেঁ যাওয়াসহ ফলন কম হবে আশংকা করছি।

উপজেলা কৃষি অফিসার মো. হাবিবুর রহমান জানান, চলতি বছরে উপজেলায় আগাম জাতের আলু চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪ হাজার ১ শ’ হেক্টর জমিতে। আমার জানা মতে কয়েকজন কৃষক আগাম আলু রোপন করেছিল। অতিবৃষ্টির কারণে জমি পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বীজগুলো জমি থেকে তুলে রেখেছে। আবহাওয়া ভালো হলে আবার রোপন করবে। খুব দ্রুতই আবারও আলু রোপনের ধুম পড়বে এ এলাকায়। এ বছর আগাম আলু রোপনের বিলম্ব হলেও উৎপাদন ও বাজার দর স্বাভাবিক পাবে বলে মনে করছি। এছাড়া বৈরি আবহাওয়ার কারণে আমরা আবহাওয়া দেখে কৃষকদের আগাম আলু রোপনের পরামর্শও দিচ্ছি।


যাদের বাচ্চা আছে, এই এক গেইমে আপনার বাচ্চার লেখাপড়া শুরু এবং শেষ হবে খারাপ গেইমের প্রতি আসক্তিও।ডাউনলোডকরুন : https://play.google.com/store/apps/details?id=com.zoombox.kidschool



আরও পড়ুন

যুবক-যুবতীরা সন্ধ্যার পর বের হতে পারবে না

rony

মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতে রাজধানীজুড়ে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত, জরিমানা

azad

হেলমেটের অজুহাতে মাস্ক না পরায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের জরিমানা

rony

সামাজিক ব্যাধির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন : প্রশাসন কর্মকর্তাদের প্রধানমন্ত্রী

azad

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে বাসের ধাক্কায় মা-ছেলের প্রাণহানি

azad

পেঁয়াজ বীজের আবাদেই কোটিপতি সাহিদা বেগম

Shamim Reza