প্রয়াত সাত নেতার নামে কোরবানী দিলেন আব্দুর রহমান

জুমবাংলা ডেস্ক : ঈদুল আযহায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলির সদস্য ও ফরিদপুর-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মো. আব্দুর রহমান অসহায় দুস্থ ও পথচারীদের মধ্যে কোরবানীর মাংস বিতরণের মাধ্যমে এক ব্যতিক্রমী আয়োজন করেছেন।

ফরিদপুরের বোয়ালমারী, মধুখালী ও আলফাডাঙ্গার প্রয়াত ৭ আওয়ামী লীগ নেতার নামে তিনি কোরবানী দিয়ে। তারা হলেন, মধুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মরহুম মফিজুর রহমান মঞ্জু মিয়া, মধুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের অপর সাবেক সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মরহুম মির্জা মনিরুজ্জামান বাচ্চু, সহসভাপতি ও মধুখালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম আবুল কাশেম দুলু মিয়া, মধুখালীর নওয়াপাড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম মির্জা আবুল কাইয়ুম, বোয়ালমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা গোলাম সরোয়ার মৃধা, বোয়ালমারীর সাতৈর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মরহুম আ. রাজ্জাক মোল্যা এবং আলফাডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুল বাশার।

পূর্বসূরি ত্যাগী নেতাদের স্মরণ ও শ্রদ্ধা প্রদর্শনের এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগটি স্থানীয় জনসাধারণের কাছে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে। এ সময়ের রাজনীতিতে এটি নিঃসন্দেহে একটি অনন্য দৃষ্টান্ত।

জানা যায়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সুচনালগ্ন থেকে তৃণমূল পর্যায়ে বিভিন্ন প্রতিকুল পরিবেশে অনেক সংগ্রাম, ত্যাগ-তিতিক্ষা স্বীকার করে প্রয়াত নেতারা বলিষ্ট নেতৃত্ব দিয়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করেছেন।

তাঁদের আত্মত্যাগে আওয়ামী লীগ আজ শক্তিশালী। স্থানীয় পর্যায়ে কিংবদন্তিতুল্য এই সাত নেতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা অর্পণ এবং তাঁদের আত্মার শান্তি কামনায় ঈদুল আযহায় আব্দুর রহমান তাঁর নির্বাচনীয় এলাকায় তাঁদের আত্মত্যাগ এবং কর্মজীবনে আওয়ামী লীগের প্রতি অবদান ও মুক্তিযুদ্ধে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ এই মহতি উদ্যোগ গ্রহণ করেন। আজ বুধবার বিকেলে ফরিদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তামজিদুল রশিদ চৌধুরী রিয়ান ও সাধারণ সম্পাদক ফাহিম আহমেদের নেতৃত্বে সদ্যঘোষিত মধুখালী, বোয়ালমারী ও আলফাডাঙ্গা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের মাধ্যমে ঈদুল আযহায় ৫০০ দুস্থ পরিবারের মধ্যে এ মাংস বিতরণ করা হয়েছে।

ভ্যানচালক, পথচারী ও সমাজের অসহায় দুস্থদের মাঝে এসব বিতরণ করা হয়।

এ ব্যাপারে দুস্থ কাকলী বেগম ও ভ্যানচালক বাদশা মিয়া বলেন, কখনা ভাবিনী কোরবানীর ঈদে রাস্তায় দাড়ায় মাংস পাবো।

করোনাভাইরাসের মধ্যেও এ ধরনের মহতি আয়োজন যারা করেছেন আল্লাহ তাদের মঙ্গল করুক। আজ হয়তো পরিবারের সদস্যদের নিয়ে দু’টুকরো মাংস দিয়ে ভাত খেতে পারবো।

এক প্রতিক্রিয়ায় আব্দুর রহমান বলেন, প্রয়াত নেতাদের জীবনের ত্যাগ-তিতিক্ষা ও ধারাবাহিক সংগ্রামের ফসল আজকের আওয়ামী লীগ। পূর্বসূরি এই নেতাদের দেখিয়ে যাওয়া পথ অনুসরণ করেই আজকের বাংলাদেশ। জাতির পিতার আদর্শের সন্তানদের স্মরণ ও আত্মার শান্তির জন্য আমার এ উদ্যোগ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে লালন করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে।


জুমবাংলানিউজ/এসআর