Views: 37

জাতীয়

ফুলে ফুলে সুশোভিত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক

জুমবাংলা ডেস্ক: ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক। মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে যেখানেই চোখ পড়বে সেখানেই ফুলের সমারোহ। মহাসড়কের ফোর লেনের আইল্যান্ডে কুমিল্লাসহ ফেনী, চট্টগ্রাম অংশে বর্ণিল ফুলের মেলা বসেছে। লাল, হলুদ নানা রঙের ফুলের গাছ। মনোরম দেখতে দেখতে যাতায়াত করছেন যাত্রীরা। এ দৃশ্য দেখে খুশি যাত্রী ও পরিবহন সংশ্লিষ্টরা।

সড়ক ও জনপদ সূত্র জানায়, এক পাশের আলো যেন অন্য পাশে এসে দুর্ঘটনা না ঘটায় তাই এ কম উচ্চতার ফুলের গাছ লাগানো হয়েছে। এ ছাড়া সৌন্দর্য বৃদ্ধি এবং আইল্যান্ড দখলমুক্ত রাখতেও এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

ফোর লেনের প্রজেক্ট ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করা নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুম সারোয়ার ও অন্যান্য সূত্র জানায়, কুমিল্লার দাউদকান্দি থেকে চট্টগ্রাম সিটি গেট পর্যন্ত ১৯২ কিলোমিটার মহাসড়ক। এ মহাসড়কের ১৪৩ কিলোমিটার এলাকায় বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানো হয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে হৈমন্তী, কুর্চি, টগর, রাধাচূড়া, কাঞ্চন, সোনালু, কৃষ্ণচূড়া, কদম, বকুল, পলাশ, কবরী, ক্যাসিয়া ও জারুল প্রভৃতি। এরকম ৫৪ হাজার গাছ লাগানো হয়েছে। এগুলোর উচ্চতা ২ মিটার থেকে ৫ মিটার। এ ছাড়া সড়ক স্লোপে জলপাই, অর্জুন, কাঁঠাল, মেহগনি, শিশু, আকাশমণি, চালতা, নিম, একাশিয়া, হরিতকীসহ বিভিন্ন প্রজাতির ৪২ হাজার গাছ লাগানো হয়েছে।

মহাসড়কের কুমিল্লার চান্দিনা পালকি সিনেমা হল থেকে হাড়িখোলা পর্যন্ত ও আলেখারচর এলাকায় সারি সারি সোনালু গাছে ফুটেছে হলুদ ফুল। গ্রীষ্মের এ সময়ে সোনালু ফুলের সোনাঝড়া রূপে মাতোয়ারা গাড়ি চালক-যাত্রী ও পথচারীরা। অনেক পথচারী ক্ষণিকের জন্য হলেও থমকে দাঁড়িয়ে প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য প্রাণ খুলে উপভোগ করতে দেখা গেছে।
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের সহকারী অধ্যাপক মাছুম মিল্লাত মজুমদার বাসসকে জানান, গ্রামের বাড়ি ফেনী থেকে প্রায় এ মহাসড়কে কুমিল্লায় আসি। নানা রঙের ফুলে মহাসড়ক বর্ণিল হয়ে উঠেছে, দেখতে ভালোই লাগে। এগুলোর পরিচর্যা করলে মহাসড়কের এ সৌন্দর্য অটুট থাকবে।

সড়ক ও জনপদ অধিদফতর কুমিল্লা কার্যলয়ের কর্মকর্তা আতিকুর রহমান বলেন, ফোর লেন প্রকল্পের আওতায় ১৪ টি বাইপাস, সেতু ও কালভার্ট ছাড়া মহাসড়কের মিডিয়ানে (আইল্যান্ড) এসব গাছ লাগানো হয়েছে। গাছের সুরক্ষায় আমরা নজরদারি করছি।

এদিকে, লাল, হলুদ আর সাদা রংয়ের ফুলে ছেয়ে গেছে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের সীতাকুন্ড ও মিরশ্বরাই অংশের উভয় রাস্তার মাঝে ৬৬ কিলোমিটার এলাকা।

ঢাকা-চট্রগ্রাম  মহাসড়ক চার লেন করার পর সড়ক ও জনপথ বিভাগের উদ্যোগে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে রোপণ করা হয়েছিল ৫৬ হাজার চারা।

প্রতি চার ফুট অন্তর অন্তর লাগানো রাধাচূড়া, হৈমন্ত, টগর, কুর্চি, কাঞ্চন ও সোনালু ফুলের গাছ পরিপূর্ণ ফুলে ফুলে। আর এসব ফুল ছড়াচ্ছে অপরূপ শোভা। ফুল গাছের পাশাপাশি সৌন্দর্য বাড়াচ্ছে নানা জাতের পাতাবাহারের গাছ।

সীতাকুন্ড উপজেলার নুনাছড়া, পন্থিছিলা, বাশঁবাড়িয়া ও বাড়বকুণ্ড এলাকার সড়কে চোখে পড়ে নানান ফুল ও সৌন্দর্য বর্ধনকারী বৃক্ষরাজি। এই পথে চলাচলকারী যাত্রীরা যাত্রাপথে উপভোগ করছেন এই অকৃত্রিম সৌন্দর্য। – বাসস

আরও পড়ুন

ঢাকা থেকে কলকাতা যেতে লাগবে সাড়ে ৩ ঘণ্টা!

Shamim Reza

আরও এক মামলায় অভিযুক্ত হচ্ছেন ডা. সাবরিনা, শিগগিরই চার্জশিট

Shamim Reza

ত্ব-হাকে ফিরে পাওয়ায় যা বললেন স্ত্রী

globalgeek

জবানবন্দি শেষে ত্ব-হা ও তার সঙ্গীদের ছেড়ে দেয়ার আদেশ

Shamim Reza

ডেথ রেফারেন্স জটে বছরের পর বছর কনডেম সেলে আসামিরা

Shamim Reza

থানায় ডাকলেও আত্মগোপনে আবু ত্ব-হার সহযোগী ফিরোজ

Shamim Reza