ফ্রান্সে আক্রান্তের রেকর্ড, বাড়ানো হচ্ছে কারফিউয়ের এলাকা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : নতুন করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে ফ্রান্সে। সবশেষ চব্বিশ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক মানুষের শরীরে এই ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়েছে। অবস্থা সামাল দিতে দেশটির আরও কয়েকটি এলাকাকে রাত্রিকালীন কারফিউয়ের আওতায় আনার ঘোষণা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রী জিন কাস্তেক্স।

করোনা পরিস্থিতি তুলে ধরে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে কাস্তেক্স জানান, দেশ জুড়ে আরও ৪১ হাজার ৬২২ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা একদিনের আক্রান্ত হিসেবে সর্বোচ্চ। এই সময়ে আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৬২ জনের।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এখন করোনার দ্বিতীয় ধাপের সংক্রমণ ছড়িয়ে যাওয়ার পথে আছে ফ্রান্স। আসছে সপ্তাহগুলো আরও কঠিন হবে। মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তির দিকে থাকবে।”

“আমরা যদি এই মহামারি থামাতে ব্যর্থ হই তাহলে আমাদের কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে। তখন আমাদের আরও কঠিন পদক্ষেপ নেওয়া লাগতে পারে। পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণের এখনো সময় আছে আমাদের। তবে সময়টা খুব বেশি নেই।”

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাজধানী প্যারিসসহ ফ্রান্সের নয়টি শহরে চার সপ্তাহের রাত্রিকালীন কারফিউ চলছে, তা ছয় সপ্তাহের জন্য বাড়ানো হতে পারে। ছয় সপ্তাহের কারফিউয়ের আওতা বাড়ানো হতে পারে আরও ৩৮টি প্রশাসনিক অঞ্চলে।

শুধু ফ্রান্স নয়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে যুক্তরাজ্য, স্পেনসহ ইউরোপের অন্যান্য দেশেও।

ওয়ার্ল্ডো মিটারের তথ্যমতে, বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৪ কোটি ২০ লাখ ছুঁই ছুঁই করছে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১১ লাখ ৪২ হাজার।


জুমবাংলানিউজ/এসএস

অন্যরা যা পড়ছেন: