Views: 306

অপরাধ-দুর্নীতি আন্তর্জাতিক স্লাইডার

বাংলাদেশে গরু পাচারের সঙ্গে জড়িতদের বিপুল সম্পত্তির হদিস পেল সিবিআই


রাজ্যের গরু পাচার চক্রের পাণ্ডা এনামুল হক (বাঁ দিকে) এবং সল্টলেকে বিএসএফ আধিকারিক সতীশ কুমারের বাড়ি সিল করছেন সিবিআই আধিকারিকরা (ডান দিকে)। ছবি আনন্দবাজার পত্রিকার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বাংলাদেশে গরু পাচারের সঙ্গে জড়িতদের বিপুল সম্পত্তির হদিস পেল সিবিআই। রীতিমতো চমকে ওঠার মতো সম্পত্তি বানিয়েছেন অভিযুক্তরা। খবর ডয়চে ভেলের।

বাংলাদেশে গরু পাচারের দায়ে অভিযুক্ত বিএসএফ অফিসার ও পাচারকারীর সম্পত্তির বিবরণ দেখে অবাক সিবিআই অফিসাররা। বিএসএফের অভিযুক্ত অফিসারের নাম সতীশ কুমার। তার সল্টলেকে একটি বাড়ি আছে। গাজিয়াবাদে আছে তিনটি বাড়ি এবং দুইটি জমি। অমৃতসরে বাগানবাড়ি। এ ছাড়া উত্তরাখণ্ডে মনোরম পর্যটনকেন্দ্র, মুসৌরিতে একটি হোটেলের মালিকও তিনি। এখানেই শেষ নয়, শিলিগুড়ি এবং ছত্তিশগড়ের রায়পুরেও তাঁর জমি ও বাড়ি আছে। হবে নাই বা কেন, একটা গরু পিছু তিনি দুই হাজার টাকা পেতেন বলে অভিযোগ। এই অভিযোগ সত্যি হলে দিয়ে-থুয়েও হাতে অনেকটাই থাকার কথা।  আর হাজারে হাজারে গরু পাচার হয়। ফলে অভিযুক্তদের হাতে যে অঢেল টাকা থাকবে তা বোঝাই যাচ্ছে।


পাচারকারী এনামুল হকও পিছিয়ে নেই, বরং তার সম্পত্তি আরো বেশি। তার একটা ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১৩০ কোটি টাকার হদিশ পেয়েছে সিবিআই। অন্য অ্যাকাউন্টে আছে ১০ লাখ ডলার। এ ছাড়াও তার আরো অ্যাকাউন্ট ও বেনামে সম্পত্তি থাকতে পারে। তার সঙ্গী সাথীদের হাতেও প্রচুর টাকা। এর থেকেই বোঝা যাচ্ছে, গরু পাচারের সঙ্গে কী বিশাল পরিমাণ টাকা জড়িয়ে আছে।

সিবিআইয়ের ধারণা, এটা শুধু সতীশ কুমার ও এমানুল হকের কাজ নয়। এর সঙ্গে বেশ কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিরও জড়িত থাকার সম্ভাবনা আছে। তবে তারা কারা সে সম্পর্কে সিবিআই অফিসাররা মুখ খোলেননি। তবে তাঁরা মনে করছেন, শুধু গরু নয়, সোনা ও মাদক পাচারের সঙ্গেও পাচারকারীরা যুক্ত থাকতে পারে।

সিবিআই মাঝখানে দুই বছর তদন্ত করতে পারেনি। কারণ ২০১৮ সালের শেষের দিকে রাজ্য সরকার সিবিআই তদন্তের ‘জেনারেল কনসেন্ট’ প্রত্যাহার করে নেয়। সম্প্রতি হাইকোর্ট রায়ে বলেছে, কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে গেলে সিবিআইয়ের কোনো অনুমতির দরকার নেই। সেই সূত্রেই গরু পাচার ও বিশ্বভারতীর প্রাক্তন উপাচার্যের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই।

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি এবং লোকসভায় বিরোধী দলনেতা অধীর চৌধুরী ফেসবুকে অভিযোগ করেছেন, ‘রাজ্যের পুলিশ ও শাসক দলের মদত ছাড়া গরু পাচার হতে পারে না। গরু তো মানিব্যাগে ভর্তি হয়ে আসেনি। এসেছে ট্রাক ভর্তি হয়ে।’ অধীরের দাবি, ‘পুলিশ ও নেতাদের কার কত রেট তা মুর্শিদাবাদের মানুষ জানেন। তাঁরা এও জানেন, যে দল ক্ষমতায় থাকে, পাচারকারীদের কাছে তাদের খুব কদর।’ বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়ের দাবি, ‘গরু পাচারের টাকা সন্ত্রাসবাদের কাজে লাগে।’


যাদের বাচ্চা আছে, এই এক গেইমে আপনার বাচ্চার লেখাপড়া শুরু এবং শেষ হবে খারাপ গেইমের প্রতি আসক্তিও।ডাউনলোডকরুন : https://play.google.com/store/apps/details?id=com.zoombox.kidschool



আরও পড়ুন

বউকে ‘আপন বোন’ বানিয়ে চাকরি নেয়ার ঘটনায় দুই শিক্ষক বরখাস্ত

Saiful Islam

সৌদিতে উঠে যাচ্ছে কাফালা পদ্ধতি, সুফল পাবেন অভিবাসী কর্মীরা

Saiful Islam

নারীদের ‘জানোয়ারের’ সঙ্গে তুলনা করলেন নেতানিয়াহু

Saiful Islam

ভারতে কৃষক বিক্ষোভ দমাতে ৯টি স্টেডিয়ামকে অস্থায়ী জেলখানা করার প্রস্তাব

Saiful Islam

বিনামূল্যে করোনা ভ্যাকসিন দেবে মালয়েশিয়া

Saiful Islam

ব্রিটেনের ক্লিনিকে চলছে বিতর্কিত ‘কুমারীত্ব পরীক্ষার’ ব্যবসা

Mohammad Al Amin