ঢাকা বিভাগীয় সংবাদ

বাবার সহায়তায় কিশোরীকে দিনের পর দিন ধর্ষণ

জুমবাংলা ডেস্ক : রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর এলাকায় বাবার সহায়তায় এক কিশোরীকে দিনের পর দিন ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই ১৩ বছর বয়সী ওই কিশোরীকে উদ্ধারের পাশাপাশি তার বাবাকেও আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) দিবাগত রাত ২টার দিকে কিশোরীকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়। এর আগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ৯৯৯-এ কল পেয়ে মেয়েটিকে কামরাঙ্গীরচরের বেটারিঘাট এলাকা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।

জানা যায়, মহাজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তা পরিশোধ না করতে পারায় নিজের কিশোরী মেয়েকে মহাজনের হাতে তুলে দেন বাবা। এভাবেই মহাজন মেয়েটিকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে।

কামরাঙ্গীরচর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শেখ মো. মোর্শেদ আলী জানান, ধর্ষণের শিকার কিশোরীর বয়স ১৩ বছর। তার মা প্রবাসী। সে বাবার সঙ্গে কামরাঙ্গীরচর থাকে। তার বাবা আবুল (৩৬) নামের এক ব্যক্তির মুরগির দোকানের কর্মচারী। দোকান মালিক আবুল প্রায় এক বছর আগে ওই কিশোরীর বাবাকে ছয় হাজার টাকা ধার দেয়। সেই টাকা দিতে পারেনি কিশোরীর বাবা।

পরে আবুল তার মেয়ের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করার কুপ্রস্তাব দেয়। এর পর থেকেই কিশোরীর সঙ্গে সম্পর্ক করার চেষ্টা করছিল সে। পরে বাবার সহায়তায় একপর্যায়ে কিশোরীকে রাজি করায় আবুল। এরপর দীর্ঘদিন বাবার সহায়তায় কিশোরীকে ধর্ষণ করে আবুল।

সর্বশেষ গত ১১ জানুয়ারি কিশোরীকে ধর্ষণ করে সে। এরপর ওই কিশোরী পাশের বাসার এক নারীর কাছে ঘটনা খুলে বলে তাকে বাঁচাতে বলে। পরে ওই প্রতিবেশী মঙ্গলবার বিকেলে ৯৯৯-এ ফোন দিলে ওই বাসা থেকে কিশোরীকে উদ্ধার ও বাবাকে আটক করে পুলিশ। পরে কিশোরীকে রাতে ঢাকা মেডিকেলের ওসিসিতে ভর্তি করানো হয়।

এসআই শেখ মো. মোর্শেদ আলী আরো জানান, ওই প্রতিবেশী বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। আটক হওয়ার পর কিশোরীর বাবাই কৌশলে ফোন দিয়ে দোকান মালিক আবুলকে পালিয়ে থাকতে বলে।

তবে ধর্ষক আবুলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।




জুমবাংলানিউজ/এসআর


আপনি আরও যা পড়তে পারেন


rocket

সর্বশেষ সংবাদ