in

ভাড়া ১ হাজার নিয়ে সারারাত না থাকায় যৌনকর্মীকে হত্যা


জুমবাংলা ডেস্ক : সারারাত না থাকতে চাওয়ায় যৌনকর্মীকে হত্যার অভিযোগে আব্দুল জব্বার (২৫) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি পুলিশ। গত মঙ্গলবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিবি জানায়, এক হাজার টাকা চুক্তিতে যৌনকর্মীকে ভাড়া করার পর সারারাত না থাকায় ক্ষিপ্ত হয়ে খুন করে আব্দুর জব্বার। হত্যার পর যৌন কর্মীর মুখ ঝলসেও দেয়া হয়। পরে বন্ধুর সহায়তায় মরদেহ কার্টনভর্তি করে রাস্তায় ফেলে রেখে যায় সে।

এ বিষয়ে ডিবি গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান বলেন, গত ১০ অক্টোবর বিকেলে ভাটারা থানার ছোলমাইদ ঢালীবাড়ি এলাকায় ওই নারীর মরদেহ পাওয়া যায়। তাৎক্ষণিক মরদেহের পরিচয় শনাক্ত না হওয়ায় প্রযুক্তির সহায়তায় পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়। এরপরই অভিযুক্তকে গ্রেফতারে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

গোয়েন্দা পুলিশ জানায়, জব্বারের স্বীকারোক্তিতে চুরি হওয়া মোবাইল, ভিকটিমের ফেলে দেওয়া বোরকা এবং স্যান্ডেলসহ অন্যান্য আলামত উদ্ধার করা হয়েছে। জব্বার আদালতে ঘটনার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

ডিবি জানায়, গ্রেপ্তারের পর খুনের বিষয়টি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে জব্বার। সে গাড়ির গ্যারেজের কর্মী। আর ওই নারী একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতেন। মাঝে মধ্যে টাকার বিনিময়ে ওই নারী পরিচিতদের সঙ্গে একান্তে সময় কাটাতেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জব্বার জানায়, গত ৮ অক্টোবর দুপুরে মোবাইলে কথা বলে জব্বারের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য বের হয় ওই নারী। যমুনা ফিউচার পার্কসহ বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরি করে সন্ধ্যার পর তাকে ছোলমাইদ ঢালীবাড়ীর ভাড়া বাসায় নিয়ে যায় যুবক। এর আগেই নিজের স্ত্রী-সন্তানকে শ্বশুরবাড়িতে পাঠিয়ে দেয় সে। বাসায় যৌনকর্ম শেষে টাকা দাবি করে চলে যেতে চাইলে নারীকে সারারাত থাকতে বলে জব্বার। এ নিয়ে ক্ষিপ্ত হোন নারী। এবং জব্বারের সব কর্মকাণ্ড ফাঁস করে দেয়ার হুঁমকি দেয়। পরে নিজের আত্মসম্মান রক্ষার ভয়ে নারীকে গলাটিপে হত্যা করে বলে দাবি জব্বারের।

ডিবি আরও জানান, জব্বার ইয়াবা আসক্ত ছিল। খুনের পর নারীর মোবাইল একহাজার টাকায় বিক্রি করে ইয়াবা কিনে সেবন করে। এসময় তার বন্ধু হীরাকে বাসায় আনে। তারা দুজন একসঙ্গে ইয়াবা সেবন করে এবং মরদেহ গুমের পরিকল্পনা করে।