মানিকগঞ্জে ধর্ষণের অভিযোগে আ’লীগ নেতা গ্রেপ্তার

সাইফুল ইসলাম, মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জেরে সাটুরিয়া উপজেলায় গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে উপজেলার বরাইদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আজ রোববার (০৯ মে) গোপালপুর বাজার থেকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হওয়া আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গাীর আলম (৪২) বরাইদ ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামের মৃত: আজিম উদ্দিনের পুত্র।

ধর্ষণের শিকার গৃহবধু মানিকগঞ্জের পালড়া গ্রামের। কিন্তু সে সাটুরিয়া উপজেলর দড়গ্রাম ইউনিনের রৌহা গ্রামে বাবার বাড়িতে বসবাস করে।

সাটুরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আশারুফুল আলম জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূ জানায়, শনিবার (৮ মে) দিবাগত রাত তিনটার দিকে সেহেরী খাবার জন্য ঘুম থেকে ওঠেন। এসময় প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাহিরে বের হই। টয়লেটের পাশে ওৎ পেতে থাকা আ’লীগ নেতা মো. জাহাঙ্গীর আলম ওরফে আলম ডাক্তার তাকে ধরে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে গৃহবধূর আত্মচিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ধর্ষক আলম ডাক্তার পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূ সাটুরিয়া থানায় রোববার (৯ মে) সকালে একটি ধর্ষণের অভিযোগ আনেন। পুলিশ প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পেলে ধর্ষককে গোপালপুর বাজার থেকে সকালে গ্রেফতার করে।

ওই গৃহবধূ আরো জানায়, দীর্ঘদিন ধরে আ’লীগ নেতা আলম ডাক্তার তাকে উত্ত্যক্ত করত। বাজারে গেলে সে জোড়পূর্বক প্রসাধণী সামগ্রী দেওয়ার চেষ্টা করত। আর বাজারে আসা যাওয়ার পথে সে বিভিন্নভাবে কুপ্রস্তাব দিত।

তার কুপ্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় সে সেহেরি খাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটায়। এমনকি ওই নেতার ভয়ে আমি ঘর থেকে বের হতে পারি না। সে আমাকে ঘরবন্দি করে রেখেছিল। এ ঘটনার পর সে আমাকে ধর্ষণের ঘটনা কাউকে বললে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। পরে থানায় অভিযোগ করি বলে জানায় ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূ।

সাটুরিয়া থানার ওসি তদন্ত মো. হাবিবুর রহমান জানান, ধর্ষিতা গৃহবধূর অভিযোগ পেয়ে ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়। ধর্ষিতা গৃহবধূকে মেডিকেল টেষ্ট করার জন্য মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানায়।


জুমবাংলানিউজ/এসআই