in

মাস্ক হোক শিশুদের অন্যতম অনুষঙ্গ

শাহিদা নাছরীন: দেশব্যাপী চলছে কঠোর বিধিনিষেধ। চারদিকে সুনসান নীরবতা। এরই মধ্যে মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। সকালে ঘুম থেকে উঠে পত্রিকার পাতায় কিংবা টিভিতে চোখ রাখলেই দেখতে হয় কত হৃদয়বিদারক দৃশ্য। স্ত্রীকে বাইকে নিজের পেছনে বেঁধে নিয়ে আইসিইউর সন্ধানে স্বামী ছুটছেন এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে। টেস্ট করাতে গিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ার দৃশ্যও চলে আসছে গণমাধ্যমে।

এতদিন করোনা বড়দেরকেই বেশি সংক্রমিত করেছে। কিন্তু সম্প্রতি শিশুদেরকে সংক্রমিত করছে ভাইরাসটির ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। তাই শিশুদের ক্ষেত্রেও এখন থেকে সাবধান হতে হবে পরিবারের সদস্যদেরকে। গণমাধ্যম থেকে বার্তা পেয়ে কিছু কিছু পরিবারে বাচ্চারা বড়দের চেয়েও বেশি সচেতন হয়েছে। বয়স্করা বাইরে গেলে বাচ্চারাই তাগাদা দিচ্ছে মাস্ক পরার জন্য এবং সাথে স্যানিটাইজার রাখার জন্য। তবে সব পরিবারের ক্ষেত্রে এটা নাও হতে পারে।

তাই করোনাকালের এই সময়ে শিশুরা সবসময় বাড়িতে থাকছে বলে ওদের মধ্যে মাস্ক পরা ও বারবার সাবান বা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। পরিবারের অন্য সদস্যদের মাধ্যমে যাতে সংক্রমিত না হয় সেজন্য বাড়িতেও শিশুদেরকে মাস্ক পরে থাকার কথা বলার পাশাপাশি নিজে সেটা করে দেখাতে হবে। কারণ বাচ্চারা বড়দের অনুসরণ করে। চোখে ও মুখে হাত দেওয়ার দরকার হলে অবশ্যই হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নেওয়ার পরামর্শ দিতে হবে। শিশুদের মাস্ক পরানোর অভ্যাসটা করাতে পারলে তারা নিজেদের করোনার সংক্রমণ থেকে দূরে রাখতে পারবে।

কথা বলেছিলাম পরিচিত কয়েকজন চিকিৎসকের সাথে। তারা জানালেন শিশুদের করোনা সংক্রমণের নানা কথা। করোনা হলে শিশুদের জ্বর, সর্দি ও শ্বাসকষ্টের মতো উপসর্গ দেখা যাবে তা শুধু নয়, শিশুদের করোনা সংক্রমণের ফলে তাদের পেটে সমস্যা দেখা দিবে ও ডায়রিয়া হবে। বমির মতো উপসর্গও দেখা দেবে।

বাড়িতে ছোট বাচ্চা থাকলে বাইরে থেকে ফিরে পোশাক বদলে এবং পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে তাদের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। শিশুদের নাকে ও মুখে হাত দেওয়ার অভ্যাস আছে। এই সময়ে এই অভ্যাস দূর করার চেষ্টা করুন । শিশুদের মুখে মুখ দিয়ে আদর করবেন না এবং চুমুও খাবেন না। জ্বর, পেটের সমস্যা ও বমি হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। তাদের সুস্থ রাখতে পুষ্টিকর খাবার দিন। স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে বারবার তাগাদা দিন। বাসায় তাদেরকে আনন্দে-আহ্লাদে রাখুন। মন খুলে খেলতে দিন। তাহলে দেখবেন বাচ্চারা সহজে করোনা সংক্রমিত হবে না।


Fiver best placte to make money from home