মুক্তিযোদ্ধাদের নারী ইউএনও’র `গার্ড অব অনার’ চলবে

জুমবাংলা ডেস্ক: মারা যাওয়া বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)-রা গার্ড অব অনার দিতে পারবেন না-এই প্রস্তাব গ্রহণযোগ্য নয় বলে ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক৷

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, ‘‘তারা যে প্রস্তাব দিয়েছেন সেটা কোনো প্রস্তাব হলো! ওই প্রস্তাব তো সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক৷ সংবিধানে নারী-পুরুষ সবার সমান অধিকারের কথা বলা হয়েছে৷ তাদের ওই প্রস্তাব গ্রহণ করা তো দূরের কথা, বিবেচনা করারও কোনো সুযোগ নাই৷’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা মারা গেলে তাকে শেষ বারের মতো রাষ্ট্রীয় সম্মান জানানো হয় গার্ড অব অনারের মাধ্যমে৷ আর সেই সম্মান জানানো উপজেলা বা জেলার প্রাশানিক প্রধানের দায়িত্ব৷ এর সাথে নারী বা পুরুষের কোনো সম্পর্ক নাই৷ আর ধর্মীয় অনুভূতিরও কোনো বিষয় নাই৷ কারণ, গার্ড অব অনার জানাজার নামাজ নয়৷ এটা আলাদা৷’’ প্রস্তাব পাসের সময় অবশ্য মন্ত্রী নিজেও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন৷

এদিকে সংসদসহ নানা মহলের ব্যাপক প্রতিবাদের মুখে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটিও তাদের সুপারিশ থেকে সরে এসেছে৷ কমিটিও এখন মনে করে তাদের প্রস্তাব সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক৷ স্থায়ী কমিটির প্রধান শাজাহান খান এমপি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘কমিটির একজন সদস্য মেজর(অব.) রফিকুল ইসলাম এমপি বলেছিলেন কয়েকটি উপজেলায় নারী ইউএনওরা গার্ড অব অনার দেয়ায় ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লেগেছে৷ আমরা তার কথা পর্যালোচনা করে একটি প্রস্তাব দিয়েছিলাম মাত্র৷ আমাদের প্রস্তাব মানতে হবে এমন কোনো কথা নেই৷ আমরা প্রস্তাব দিয়েছিলাম বিষয়টি পর্যালোচলার জন্য৷’’

এরইমধ্যে সংসদীয় কমিটি তাদের প্রস্তাব থেকে সরে এসেছে বলে জানান তিনি৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা আইনমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি৷ তিনি বলেছেন আমাদের প্রস্তাবটি সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক৷ আমরা নিজেরাও বুঝতে পেরেছি আমাদের প্রস্তাবটি ঠিক নয়৷ কারণ, এর সাথে ধর্মীয় অনুভূতির কোনো সম্পর্ক নাই৷ গার্ড অব অনার এবং জানাজা এক নয়৷ জানাজা আলাদা পড়ানো হয়৷ তাই আমাদের প্রস্তাবটির এখন আর কোনো অস্তিত্ব নাই৷’’

যে ধর্মীয় অনুভূতির কথা বলেছিল সংসদীয় কমিটি, তার সঙ্গে ইসলামী চিন্তাবিদরাও একমত নন৷ শোলাকিয়ার ইমাম মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ বলেন, ‘‘মুক্তিযোদ্ধাদের গার্ড অব অনার একটি রাষ্ট্রীয় সংস্কৃতি বা রীতি৷ এর সঙ্গে ধর্মের কোনো সম্পর্ক খোঁজা ঠিক না৷ ইসলামে নারীরা জানাজা বা অন্য কোনো নামাজে ইমমতি করতে পারেন না৷ কিন্তু নিয়ম মেনে নামাজে অংশ নিতে পারেন৷ আর গার্ড অব অনার তো কোনো নামাজ নয়৷’’

সংসদীয় কমিটি এখন তাদের প্রস্তাব থেকে সরে এলেও যারা এই প্রস্তাব করেছেন তাদের মানসিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন নারী নেত্রী অ্যাডাভোকেট এলিনা খান৷ তিনি বলেন, ‘‘তারা হয়ত প্রতিবাদের মুখে এখন তাদের অবস্থান বদল করেছেন৷ কিন্তু তাদের প্রস্তাবে নারীর প্রতি তাদের মানসিকতা প্রকাশ পেয়েছে৷ যারা আইন প্রণয়ন করেন, তারা যদি সংবিধান না বোঝেন তাহলে তা দুঃখজনক৷ আর তারা ধর্মও জানেন বলে মনে হয় না৷ তাদের এই প্রস্তাব নারীর অধিকার ও ক্ষমতায়নের পথে অন্তরায়৷’’

গত ১৩ জুন সংসদীয় কমিটির বৈঠকে ধর্মীয় অনুভূতির প্রশ্ন তুলে গার্ড অব অনারে নারী ইউএনওদের বিকল্পের জন্য প্রস্তাব পাস করে সুপারিশ আকারে তা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়৷ শাজাহান খান এমপির সভাপতিত্বে ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, রাজি উদ্দিন আহমেদ, মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম, কাজী ফিরোজ রশীদ, ওয়ারেসাত হোসেন ও মোছলেম উদ্দিন আহমদ৷

প্রসঙ্গত, মৃত্যুর পর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গার্ড অব অনার দেয়ার সর্বশেষ নিয়ামাবলী জারি করা হয় ২০২০ সালে৷ এর আগে ২০১৫ সালে প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে গার্ড অব অনার দেয়ার বিধান চালু করা হয়৷

নিয়ম অনুযায়ী মহানগর ও জেলা সদরে জেলা প্রশাসক এবং উপজেলা পর্যায়ে হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকারের পক্ষ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মান প্রদর্শন করবেন৷

আর এজন্য মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধার কফিন জাতীয় পতাকায় আবৃত করতে হবে৷ তবে সৎকার বা সমাধিস্থ করার আগে জাতীয় পতাকা খুলে ফেলতে হবে৷ সরকারের অনুমোদিত প্রতিনিধি কফিনে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন৷ পুলিশ বাহিনীর সশস্ত্র সদস্যরা সশস্ত্র সালাম প্রদান করবেন এবং বিউগলে করুণ সুর বাজাতে হবে৷ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গার্ড অব অনার পরিচালনা করবেন৷

আজকের জনপ্রিয়:
>> আয়ু কমে যাওয়ার ৭ কারণ
>> সন্তানদের যে আমলের অভ্যাস করানো জরুরি
>> ছেলেদের যে বিষয়গুলো মেয়েরা সবার আগে খেয়াল করে


Share:





জুমবাংলানিউজ/এইচএম