Views: 96

আন্তর্জাতিক জাতীয়

সূবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে নয় মাস ব্যাপী এক বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে ব্রিটেন

পূর্ব লন্ডনের ব্রিক লেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীর দিনে।

জুমবাংলা ডেস্ক: সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে নানা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ব্রিটেনে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তী পালিত হচ্ছে। খবর বিবিসি বাংলার।

বাংলাদেশের বাইরে বাংলাদেশীদের সবচেয়ে বড় এই বাসভূমিতে পূর্ব লন্ডনের টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল সূবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে নয় মাস ব্যাপী এক বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে।

সূবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ, যুবরাজ চার্লস এবং প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বিশেষ বাণীর মাধ্যমে বাংলাদেশের জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

মি. জনসন ব্রিটেনের আর্থ-সামাজিক খাতে ব্রিটিশ বাংলাদেশীদের অবদানের কথা উল্লেখ করে বলেন, ছয় লক্ষ ব্রিটিশ-বাংলাদেশী দু’দেশের মধ্যে বন্ধনকে জিইয়ে রেখেছে।

প্রধানমন্ত্রী জনসনের ভিডিও বার্তা (ইংরেজি):

করোনাভাইরাস মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ব্রিটিশ স্বাস্থ্য বিভাগ এনএইচএস-এ কর্মরত নার্স এবং ডাক্তারদের তিনি বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান।

লন্ডনের বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো সংসদীয় এলাকার নির্বাচিত এমপি রুশনারা আলীও টুইটারে এক ভিডিও বার্তায় বলেছেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে যারা চরম ত্যাগ স্বীকার করেছেন তাদের কাছে আমরা বিপুলভাবে ঋণী।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য যেসব ব্রিটিশ বাংলাদেশী লড়াই করেছেন, আমাদের পূর্ব প্রজন্মসহ, আমরা তাদের নিয়ে খুবই গর্ব অনুভব করি বলে মন্তব্য করেন রুশনারা আলী।

রুশনারা আলীর অভিনন্দন বার্তা (ইংরেজি):

সূবর্ণ জয়ন্তীর সকালে পূর্ব লন্ডনের আলতাব আলী পার্কে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন টাওয়ার হ্যামলেটস-এর নির্বাহী মেয়র জন বিগস্ এবং লন্ডনে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম।

টাওয়ার হ্যামলেটস কর্মকর্তারা বলছেন, এটি একটি বিরল সম্মান, যেখানে একজন নির্বাহী মেয়র কোন বিদেশি রাষ্ট্রের পতাকা উত্তোলন করছেন।

২৬৫ দিনের উৎসব

আলতাব আলী পার্কে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান। পতাকা ধরে আছেন হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম এবং মেয়র জন বিগস্‌।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীকে যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালন করতে টাওয়ার হ্যামলেটস থেকে যে অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে, সেটি চলবে ২৬৫ দিন ধরে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের নয় মাসের সংগ্রামকে সম্মান জানাতে এই সময়সীমাকে নির্বাচন করা হয়েছে বলে কর্মকর্তারা বলছেন।

এতে নানা ধরনের অনলাইন ইভেন্টের পাশাপাশি থাকছে ছবি ও আলোকচিত্র প্রদর্শনী এবং আলোচনা সভা।

এরই অংশ হিসেবে পূর্ব লন্ডনের হোয়াইটচ্যাপেল এলাকায় তৈরি করা হবে একটি বিশাল ভাস্কর্য।

বাংলাদেশের রঙে রেঙেছে লন্ডন আই।

ব্রিটেনের ন্যাশনাল পোর্ট্রেট গ্যালারির সহায়তায় স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে মিলে বাঙালী শিল্পী রুহুল আবদিন এটি তৈরি করবেন।

সূবর্ণ জয়ন্তীর সন্ধ্যায় লন্ডনের একটি উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান ‘লন্ডন আই’কে বাংলাদেশের পতাকার রঙের আলো দিয়ে সাজানো হয়। লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশন ভবনটিও সাজানো হয় আলোকমালায়।

এছাড়াও পুরো ব্রিটেন জুড়ে বাংলাদেশীদের সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো স্থানীয় পর্যায়ে নানা ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।


যাদের বাচ্চা আছে, এই এক গেইমে আপনার বাচ্চার লেখাপড়া শুরু এবং শেষ হবে খারাপ গেইমের প্রতি আসক্তিও।ডাউনলোডকরুন : https://play.google.com/store/apps/details?id=com.zoombox.kidschool



আরও পড়ুন

কিংবদন্তী অভিনেত্রী কবরীর মৃত্যুতে এলজিআরডি মন্ত্রীর শোক

mdhmajor

অভিনয় ও রাজনীতিতে সমান পারদর্শিতা দেখিয়েছেন কবরী: জি এম কাদের

mdhmajor

মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

mdhmajor

চালুর প্রথম দিনেই বিমানের ৫টি বিশেষ ফ্লাইটের ৪টিই বাতিল

mdhmajor

মুগদা হাসপাতাল ভবন থেকে লাফিয়ে করোনা রোগীর ‘আত্মহত্যা’

mdhmajor

ভারতে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ ভূমিকা রেখেছিলেন কবরী

mdhmajor