সেজান কারখানায় আগুন : শনিবার তদন্তে যাচ্ছে সিআইডি

জুমবাংলা ডেস্ক : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সজীব গ্রুপের সেজান জুস কারখানায় আগুনে ৫২ জনের প্রাণহানির ঘটনায় দায়ের করা মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

সংস্থাটির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আবুল কালাম আজাদ এ তথ্য জানান।

শুক্রবার তিনি বলেন, সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি ইমাম হোসেন এই মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করেছেন। শনিবার দুপুর ১২টায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করবে সিআইডির তদন্ত দল। খবর বাসসের।

মামলাটি সেনসেটিভ (সংবেদনশীল) জানিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, যেসব আলামত জব্দ করা হয়েছে সেগুলোর ফরেনসিক পরীক্ষা করাতে হবে। এ কারণেই মামলাটি নিবিড় পর্যবেক্ষণ ও তদন্তের জন্য সিআইডির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

রূপগঞ্জে সজীব গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজের সেজান জুস কারখানায় গত ৮ জুলাই বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে আগুনের ঘটনা ঘটে। কারখানার ছয়তলা ভবনটিতে আগুন মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ে। দাহ্য পদার্থ থাকায় কয়েকটি ফ্লোরের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ফায়ার সার্ভিসের ১৮টি ইউনিটের ২০ ঘণ্টার বেশি সময় লাগে। এ ঘটনায় ৫২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় আহত হন আরো অর্ধশতাধিক শ্রমিক। আগুনের ঘটনার পরপরই কারণ অনুসন্ধানে ফায়ার সার্ভিস, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতর পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করে। এছাড়া পুলিশ মামলা দায়ের করে। ওই মামলায় সজীব গ্রুপের চেয়ারম্যানসহ আটজনকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয় আদালতের মাধ্যমে।

এদিকে আগুনে পুড়ে মৃত ৪৯ জনের লাশ শনাক্ত করতে না পাড়ায় হস্তান্তর করা সম্ভব হয়নি। ওই সব লাশের ও তাদের দাবিদার পরিবারের সদস্যদের ডিএনএ সংগ্রহ করেছে সিআইডি। ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে লাশের পরিচয় শনাক্তের পরই তা হস্তান্তর করা হবে পরিবারের কাছে। এ জন্য কমপক্ষে এক মাস সময় লাগবে বলে তখন সিআইডির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানিয়েছেন।


জুমবাংলানিউজ/এসআর