in ,

স্ত্রীকে অপহরণের অভিযোগে সেনাসদস্য গ্রেফতার

জুমবাংলা ডেস্ক : কুড়িগ্রামের রৌমারীতে স্ত্রীকে অপহরণের অভিযোগে করা মামলায় লিটন মিয়া নামে এক সেনা সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার (২ আগস্ট) বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট কর্তৃপক্ষ লিটন মিয়াকে বগুড়ার শাহজাহানপুর থানায় সোপর্দ করলে মঙ্গলবার সকালে তাকে রৌমারী নিয়ে আসে থানা পুলিশ। এর আগে ২০ জুলাই তার স্ত্রী লাকী আক্তারের বড় ভাই হাসানুজ্জামান বাদী হয়ে আট জনকে আসামি করে রৌমারী থানায় মামলা দায়ের করেন। রৌমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুন্তাছের বিল্লাহ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেফতার লিটন মিয়া উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের বকবান্দা গ্রামের ছেবার উদ্দিনের ছেলে। তিনি বগুড়া ক্যান্টমেন্টে কর্মরত ছিলেন বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে।

নিখোঁজ লাকি আক্তারের বড় ভাই হাসানুজ্জামান জানান, বিয়ের পর থেকেই লিটন যৌতুকের জন্য স্ত্রী লাকি আক্তারের ওপর নানাভাবে নির্যাতন করে আসছিলেন। নির্যাতন সইতে না পেরে এক সময় লাকি নির্যাতনের বিষয়টি সেনা ইউনিটে মৌখিকভাবে জানান। এতে লিটন ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে নানাভাবে হত্যা ও গুমের হুমকি দিয়ে আসছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৬ জুন লিটন মায়ের অসুস্থতার কথা বলে স্ত্রীকে উপজেলার যাদুরচর নতুনগ্রামে (দিগলাপাড়া) তার (লিটনের) ভগ্নিপতি জাবেদ আলীর বাড়িতে ডেকে নেন। এরপর থেকে লাকি আক্তারের আর কোনও খোঁজ মিলছে না। এ নিয়ে গত ২ জুলাই রৌমারী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে লাকির পরিবার।

পুলিশ ও নিখোঁজ লাকির পরিবার সূত্রে জানা যায়, লাকি নিখোঁজের সাধারণ ডায়েরি হওয়ার পর তদন্তকালে পুলিশ ওই সেনা সদস্যের ভগ্নিপতি জাবেদ আলীর বাড়ির পশ্চিম পাশে ব্রহ্মপুত্র নদের অপর প্রান্তের পাটক্ষেত থেকে একটি ওড়না, ম্যাক্সি ও জামা উদ্ধার করে। পরে লাকিকে অপহরণের অভিযোগ এনে থানায় মামলা করে লাকির পরিবার।

লাকি আক্তারের বড় ভাই হাসানুজ্জামান বলেন, ‘লাকিকে জীবিত অবস্থায় ফেরত চাই। অন্তত তার খোঁজ চাই।’ এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছে লাকির পরিবার।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রৌমারী থানার ওসি (তদন্ত) এম আর সাইদ বলেন, ‘লাকির পরিবারের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত সেনা সদস্যকে শাহজাহানপুর থানায় হস্তান্তর করে। পরে সেখান থেকে মঙ্গলবার সকালে তাকে রৌমারী থানায় নিয়ে আসা হয়। স্ত্রী লাকি আক্তার অপহরণ মামলায় লিটন মিয়াকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।’

রৌমারী থানার ওসি মোন্তাছের বিল্লাহ বলেন, ‘পুলিশ প্রাথমিক তদন্তে কিছু আলামত জব্দ করেছে। এগুলো লাকি আক্তারের ব্যবহৃত কিনা তা যাচাই করা হচ্ছে।’

তিনি জানান, লিটন মিয়াকে অপহরণ মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার সকালে তাকে আদালতে নেওয়া হবে।


Fiver best placte to make money from home