৪ শতাংশ সুদে এসএমই ফাউন্ডেশনের প্রণোদনার চেক বিতরণ শুরু

জুমবাংলা ডেস্ক : করোনা ভাইরাসের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ৪ শতাংশ সুদে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণের চেক বিতরণ শুরু করেছে এসএমই ফাউন্ডেশন।

উদ্যোক্তাদের জন্য ৩০০ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ কার্যক্রমের গ্রাহক পর্যায়ে ঋণের পরিমাণ হবে সর্বনিম্ন ১ লাখ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ টাকা পর্যন্ত।

ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে সর্বোচ্চ ২৪টি সমান মাসিক কিস্তিতে ঋণ পরিশোধ করা যাবে।
মঙ্গলবার (১১ মে) বিকালে এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনলাইনে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. মফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার। অনুষ্ঠানে ব্র্যাক ব্যাংকের পক্ষ থেকে ২ জন, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের পক্ষ থেকে ২ জন, প্রিমিয়ার ব্যাংকের পক্ষ থেকে ২ জন এবং আইডিএলসি ফাইন্যান্সের পক্ষ থেকে ১ জন উদ্যোক্তার হাতে ঋণের চেক হস্তান্তর করা হয়। তিনজন নারীসহ মোট ৭ জন উদ্যোক্তাদের মধ্যে ৯৭ দশমিক ৫০ লাখ টাকার চেক বিতরণ করা হয়।

স্বাগত বক্তব্যে এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. মফিজুর রহমান বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত এবং পিছিয়ে পড়া উদ্যোক্তাদের ঋণ পাওয়া নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যে দেশের প্রায় ৫০টি এসএমই ক্লাস্টার, ৫০ এর অধিক চেম্বার ও অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা এবং নারী-উদ্যোক্তাদের সঙ্গে অনলাইনে মতবিনিময় সভা করেছে এসএমই ফাউন্ডেশন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, সরকারের দ্বিতীয় দফা প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় এসএমই ফাউন্ডেশনের অনুকূলে ৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়। চলমান লকডাউনের মধ্যেও যে তিনটি ব্যাংক (ব্র্যাক ব্যাংক, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ও প্রিমিয়ার ব্যাংক) এবং একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান (আইডিএলসি) ঋণ বিতরণের মাধ্যমে উদ্যোক্তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে তাদের আমি বিশেষ ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার বলেন, করোনা ভাইরাস অতিমারিতে সৃষ্ট অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী অদ্যাবধি প্রায় দেড় লাখ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন যারমধ্যে কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের (সিএমএসএমই) সক্ষমতা অক্ষুন্ন রাখা এবং শিল্প কারখানায় নিয়োজিত জনবলকে কাজে বহাল রাখার উদ্দেশ্যে প্রথম দফা ২০ হাজার কোটি টাকা এবং দ্বিতীয় দফা এক হাজার ৫০০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন। উল্লিখিত প্যাকেজ দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাস্তবায়নের জন্য শিল্প মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক, এসএমই ফাউন্ডেশনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নানাবিধ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এক্ষেত্রে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের প্রতি আমাদের বিশেষভাবে নজর দিতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুর রহমান বলেন, এসএমই ফাউন্ডেশনের অনুকূলে বরাদ্দকৃত ৩০০ কোটি টাকার মধ্যে চলতি অর্থবছরে ১০০ কোটি টাকা এবং আগামী অর্থবছরে ২০০ কোটি টাকা বিতরণ করা হবে। এই ঋণ বিতরণের লক্ষ্যে সরকার নির্দেশিত সব ধরনের নির্দেশনা অনুসরণ করা হবে। ইতোমধ্যেই ১১টি ব্যাংক ও নন-ব্যাংক আর্থিক ও প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদনের মাধ্যমে ঋণ বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে এসএমই ফাউন্ডেশন। এছাড়া প্রত্যন্ত অঞ্চলের উদ্যোক্তাদের ঋণের আওতায় আনতে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকসহ আরো কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সইয়ের প্রক্রিয়াও শুরু করেছে এসএমই ফাউন্ডেশন।

জানা গেছে, প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় উদ্যোক্তারা ৪ শতাংশ সুদে ঋণ পাবেন। গ্রাহক পর্যায়ে ঋণের পরিমাণ হবে সর্বনিম্ন ১ লাখ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ টাকা পর্যন্ত। প্রথম দফার প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ঋণ না পাওয়া পল্লী ও প্রান্তিক পর্যায়ের উদ্যোক্তাদের ঋণ প্রদান করবে। মোট ঋণের ২৫-৩০ শতাংশ নারী-উদ্যোক্তাদের মধ্যে বিতরণের লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মাহবুবুর রহমান, প্রিমিয়ার ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রিয়াজুল করিম। এসএমই ফাউন্ডেশনের পরিচালক পর্ষদের সদস্যরা এবং সংশ্লিষ্ট ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে অংশ নেন।


জুমবাংলানিউজ/এসআই